ঢাকা ০৪:২৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পরিবেশবাদীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে আপনি কথা দিলেন যে আপনি বৃক্ষগুলো রক্ষা করে শহিদ মিনার নির্মাণ করবেন। কিন্তু আপনি বৃক্ষগুলো কাটার দরপত্র দিয়ে দিলেন। শ্রমিকরা বৃক্ষগুলো আপনার নির্দেশে হত্যা করলো।

মীর ইকবাল আপনি মুনাফিক, মিথ্যাবাদী কথা দিয়ে কথা রাখলেন না; টুংকু

খ্রীষ্টফার জয়
  • আপডেট সময় : ০৮:৫০:০৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪ ২৮ বার পড়া হয়েছে

শর্তবর্ষী বৃক্ষ কর্তনের মহৎসব করে চলছে উন্নয়

নিজস্ব প্রতিবেদক:


“রাজশাহী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মীর ইকবাল মুনাফিক, আপনি মিথ্যাবাদী। আপনি কথা দিয়ে কথা রাখলেন না। মুরব্বি হয়েও আপনি মিথ্যা কথা বললেন। আপনি না একজন শহিদ পরিবারের সন্তান। আপনি নিজে না একজন মুক্তিযোদ্ধা। আপনি পরিবেশবাদীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে আপনি কথা দিলেন যে আপনি বৃক্ষগুলো রক্ষা করে শহিদ মিনার নির্মাণ করবেন।

কিন্তু আপনি বৃক্ষগুলো কাটার দরপত্র দিয়ে দিলেন। শ্রমিকরা বৃক্ষগুলো আপনার নির্দেশে হত্যা করলো। আপনি বৃক্ষ হত্যাকারী।” নিজেকে শুধরে প্রাণের সঞ্চার ঘটান। কংক্রিটের চিন্তা বাদ দিয়ে সবুজায়ন সৃষ্টি করেন ‍যেন পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসা সকলে এই শহীদ মিনার চত্বরে বসে কিছুটা সময় প্রশান্তিতে কাটাতে পারে বলে হুশিয়ারি দেন সভাপতিমাহবুব টুংকু।

আজ শুক্রবার বেলা ১১ টায় রাজশাহীতে সোনাদীঘির কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার নির্মাণের জন্য নির্ধারিত স্থানের সামনের রাস্তায় বৃক্ষ হত্যার প্রতিবাদের শোক সভায় বক্তারা জেলা পরিষদ রাজশাহীর চেয়ারম্যান মীর ইকবালকে উদ্দেশ্য করে এসব কথা বলেন।

রাজশাহীর পরিবেশবাদী সংগঠন পরিবেশ আন্দোলন ঐক্য পরিষদ, ইয়ুথ এ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ-ইয়্যাস, ভঙ্গী নৃত্য শিল্পালয় ও বারসিক যৌথভাবে এ শোক সভার আয়োজন করে। যুব সংগঠন ইয়ুথ এ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ-ইয়্যাস সভাপতি মো. শামীউল আলীম শাওন’র সঞ্চালনায় শোক সভায় বক্তারা বলেন, “শহিদ মিনার নির্মাণের স্থানে ১৫০ বছর ১০০ বছরের প্রাচীন বেশকিছু বৃক্ষসহ ষাটর্ধো অনেকগুলো সবুজ বৃক্ষ রয়েছে। আমরা বিগত দিনের উন্নয়ন দেখে আশংকা প্রকাশ করেছিলাম যে শহিদ মিনার নির্মাণ করতে এ শতবর্ষী বৃক্ষগুলোকে হত্যা করা হতে পারে। তাই প্রথম থেকেই এ বৃক্ষগুলোকে রক্ষা করা দাবি জানিয়ে আসছি।

আমরা এ বিষয়ে একাধিক বার স্বারকলিপি প্রদান করেছি। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছি একাধিক বার। তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন বৃক্ষ গুলো রক্ষা করে শহিদ মিনার নির্মাণ করবেন। তবে তিনি তার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেন নি।”

শোক সভায় বক্তব্য দেন, পরিবেশ আন্দোলন ঐক্য পরিষদের আহবায়ক মাহবুব টুংকু, সদস্য সচিব নাজমুল হোসেন রাজু, বারসিকের গবেষক শহিদুল ইসলাম, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সূভাষ চন্দ্র হেমব্রম, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের বিভাগীয় সমন্বয়ক মুক্তিযোদ্ধা মাহমুদ জামাল কাদেরী, ভঙ্গী নৃত্য শিল্পালয়ের সাধারণ সম্পাদক রবিন শেখ প্রমূখ।

শোক সভা থেকে পরিবেশবাদীরা রাজশাহীতে বৃক্ষ হত্যা বন্ধ করার দাবি জানান এবং হুশিয়ারি দেন যে যদি রাজশাহীতে আর কোন বৃক্ষ হত্যা করা হয় তবে বৃহৎ আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।


প্রসঙ্গনিউজ২৪/জে.সি

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

পরিবেশবাদীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে আপনি কথা দিলেন যে আপনি বৃক্ষগুলো রক্ষা করে শহিদ মিনার নির্মাণ করবেন। কিন্তু আপনি বৃক্ষগুলো কাটার দরপত্র দিয়ে দিলেন। শ্রমিকরা বৃক্ষগুলো আপনার নির্দেশে হত্যা করলো।

মীর ইকবাল আপনি মুনাফিক, মিথ্যাবাদী কথা দিয়ে কথা রাখলেন না; টুংকু

আপডেট সময় : ০৮:৫০:০৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক:


“রাজশাহী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মীর ইকবাল মুনাফিক, আপনি মিথ্যাবাদী। আপনি কথা দিয়ে কথা রাখলেন না। মুরব্বি হয়েও আপনি মিথ্যা কথা বললেন। আপনি না একজন শহিদ পরিবারের সন্তান। আপনি নিজে না একজন মুক্তিযোদ্ধা। আপনি পরিবেশবাদীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে আপনি কথা দিলেন যে আপনি বৃক্ষগুলো রক্ষা করে শহিদ মিনার নির্মাণ করবেন।

কিন্তু আপনি বৃক্ষগুলো কাটার দরপত্র দিয়ে দিলেন। শ্রমিকরা বৃক্ষগুলো আপনার নির্দেশে হত্যা করলো। আপনি বৃক্ষ হত্যাকারী।” নিজেকে শুধরে প্রাণের সঞ্চার ঘটান। কংক্রিটের চিন্তা বাদ দিয়ে সবুজায়ন সৃষ্টি করেন ‍যেন পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসা সকলে এই শহীদ মিনার চত্বরে বসে কিছুটা সময় প্রশান্তিতে কাটাতে পারে বলে হুশিয়ারি দেন সভাপতিমাহবুব টুংকু।

আজ শুক্রবার বেলা ১১ টায় রাজশাহীতে সোনাদীঘির কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার নির্মাণের জন্য নির্ধারিত স্থানের সামনের রাস্তায় বৃক্ষ হত্যার প্রতিবাদের শোক সভায় বক্তারা জেলা পরিষদ রাজশাহীর চেয়ারম্যান মীর ইকবালকে উদ্দেশ্য করে এসব কথা বলেন।

রাজশাহীর পরিবেশবাদী সংগঠন পরিবেশ আন্দোলন ঐক্য পরিষদ, ইয়ুথ এ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ-ইয়্যাস, ভঙ্গী নৃত্য শিল্পালয় ও বারসিক যৌথভাবে এ শোক সভার আয়োজন করে। যুব সংগঠন ইয়ুথ এ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ-ইয়্যাস সভাপতি মো. শামীউল আলীম শাওন’র সঞ্চালনায় শোক সভায় বক্তারা বলেন, “শহিদ মিনার নির্মাণের স্থানে ১৫০ বছর ১০০ বছরের প্রাচীন বেশকিছু বৃক্ষসহ ষাটর্ধো অনেকগুলো সবুজ বৃক্ষ রয়েছে। আমরা বিগত দিনের উন্নয়ন দেখে আশংকা প্রকাশ করেছিলাম যে শহিদ মিনার নির্মাণ করতে এ শতবর্ষী বৃক্ষগুলোকে হত্যা করা হতে পারে। তাই প্রথম থেকেই এ বৃক্ষগুলোকে রক্ষা করা দাবি জানিয়ে আসছি।

আমরা এ বিষয়ে একাধিক বার স্বারকলিপি প্রদান করেছি। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছি একাধিক বার। তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন বৃক্ষ গুলো রক্ষা করে শহিদ মিনার নির্মাণ করবেন। তবে তিনি তার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেন নি।”

শোক সভায় বক্তব্য দেন, পরিবেশ আন্দোলন ঐক্য পরিষদের আহবায়ক মাহবুব টুংকু, সদস্য সচিব নাজমুল হোসেন রাজু, বারসিকের গবেষক শহিদুল ইসলাম, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সূভাষ চন্দ্র হেমব্রম, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের বিভাগীয় সমন্বয়ক মুক্তিযোদ্ধা মাহমুদ জামাল কাদেরী, ভঙ্গী নৃত্য শিল্পালয়ের সাধারণ সম্পাদক রবিন শেখ প্রমূখ।

শোক সভা থেকে পরিবেশবাদীরা রাজশাহীতে বৃক্ষ হত্যা বন্ধ করার দাবি জানান এবং হুশিয়ারি দেন যে যদি রাজশাহীতে আর কোন বৃক্ষ হত্যা করা হয় তবে বৃহৎ আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।


প্রসঙ্গনিউজ২৪/জে.সি