ঢাকা ০৪:২৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আদিবাসী শিশুর মুল আসামীকে ধরতে ২৪ ঘন্টার আলটিমেটাম আদিবাসী সংগঠনের

সারোয়ার হোসেন
  • আপডেট সময় : ০৩:২০:০৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২ অক্টোবর ২০২৩ ১২৬ বার পড়া হয়েছে

তানোর প্রতিনিধি:


রাজশাহীর তানোরে ধর্ষন মামলার মুল আসামী জনিকে গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার দুপুরের আগে থানা মোড়ে জাতীয় আদিবাসী পরিষদ ও পারগানা পরিষদ এবং উত্তর বঙ্গ আদিবাসী ফোরামের আয়োজনে ঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত  হয়। এর আগে ডাকবাংলো থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে রাজপথে নামে।

মানববন্ধনে পারগানা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মি: রমেশ মুর্মূ’র সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জাতীয় আদিবাসী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুসোন্না, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিমল চন্দ্র রাজোয়াড়, উত্তর বঙ্গ আদিবাসী ফোরামের সভাপতি হিংগু মুর্মূ, সাধারণ সম্পাদক হিমু মুরমু, পারগানা পরিষদের কলমা ইউপির সভাপতি পিলিপ হেম্ব্রম, তালন্দ ইউনিয়ন এর সভাপতি জেঠা টুডু, ভুক্তভূগির পিতা শুকুমার কিস্কু, উত্তর বঙ্গ শিশু উন্নয়ন প্রকল্পের ম্যানেজার গণেশ মার্ডি, পাহাড়িয়া ভাষা গবেষক অভিলাশ বিশ্বাস, রুলফাও তানোর আঞ্চলিক এনজিওর সুপার ভাইজার শুম্ভনাথ দাস, সিনিয়র ওয়ার্কার আব্দুর রহমান, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ মহানগর কমিটির সাধারন সম্পাদক ছোটন সরদার, মহিলা সদস্য শেফালী হেম্ব্রম সহ প্রমুখ।

বক্তারা অবিলম্বে ধর্ষনকারী জনিকে আটকের দাবি জানান। শুধু তাই না মামলা তুলে নিতে ভূক্তভূগি ও তার পরিবারকে নানা ভাবে হুমকি ধূমকি দেন আসামীর পরিবার।

তবে ধর্ষনের সহযোগী আলীকে গ্রেফতার করতে পারলেও মুলহোতা জনিকে গ্রেফতার করতে পারেন নি পুলিশ। দ্রুত সময়ের মধ্যে জনিকে ২৪ঘন্টার মধ্যে আটক করতে না পারলে আমাদের আন্দোলন জোরতাল ভাবে চলবে বলেও হুশিয়ারি দেন আদিবাসী জনসাধারণ ও নেত্রীবৃন্দ ।

গত মাসের ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ শনিবার ধর্ষনের ঘটনার এত দিন হলেও এখনো কেন ধর্ষণের মূল হোতা আসামী জনিকে আটক করা হয়নি বলে প্রশাসনকে জবাব দিতে বলেন নেত্রীবৃন্দ। অথচ ঘটনার চারদিন পর সহযোগী আলীকে ঢাকা থেকে আটক করেছে পুলিশ। কিন্তু জনি এখনো পলাতক।

মূলহোতা জনির শাস্তির দাবিতে মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, আদিবাসী সম্প্রদায়ের বিভিন্ন পর্যায়ের জনসাধারণ থেকে শুরু করে অঙ্গ সংগঠনের এবং সংস্থার নেত্রীবৃন্দ ।

পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে প্রসঙ্গনিউজ  তানোর থানার ওসির কাছে বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন,  একজন আসামী কে গ্রেফতার করা হয়েছে অপরজনকে গ্রেফতারে জোর অভিযান চলছে, দ্রুত সময়ের মধ্যে তাকেও গ্রেফতার করা হবে।

প্রসঙ্গত, গত মাসের ১৬ সেপ্টেম্বর শনিবার কলমা ইউপির আদিবাসী সাওতাল নাবালিকা নারী তার ভাইকে নিয়ে খাড়ির পার্শ্বে খাস কাটতে যান। এসময় পার্শের জমিতে কাজ করছিল কলমা ইউপির শালবাড়ি গ্রামের মোহাম্মাদ আলী ও জনি। মোহাম্মদ ওই নারীর ভাইকে বেধে রাখেন আর আলেক চানের পুত্র জনি ধর্ষণ করেন। ওই দিন রাতই ওই নারী পিতা থানায় মামলা করেন। মামলার প্রেক্ষিতে ২০ সেপ্টেম্বর ঢাকায় আটক হন মোহাম্মদ আলী। কিন্তু ধর্ষনকারী এখনো আটক হয়নি।


প্রসঙ্গনিউজবিডি/জে.সি

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

আদিবাসী শিশুর মুল আসামীকে ধরতে ২৪ ঘন্টার আলটিমেটাম আদিবাসী সংগঠনের

আপডেট সময় : ০৩:২০:০৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২ অক্টোবর ২০২৩

তানোর প্রতিনিধি:


রাজশাহীর তানোরে ধর্ষন মামলার মুল আসামী জনিকে গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার দুপুরের আগে থানা মোড়ে জাতীয় আদিবাসী পরিষদ ও পারগানা পরিষদ এবং উত্তর বঙ্গ আদিবাসী ফোরামের আয়োজনে ঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত  হয়। এর আগে ডাকবাংলো থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে রাজপথে নামে।

মানববন্ধনে পারগানা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মি: রমেশ মুর্মূ’র সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জাতীয় আদিবাসী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুসোন্না, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিমল চন্দ্র রাজোয়াড়, উত্তর বঙ্গ আদিবাসী ফোরামের সভাপতি হিংগু মুর্মূ, সাধারণ সম্পাদক হিমু মুরমু, পারগানা পরিষদের কলমা ইউপির সভাপতি পিলিপ হেম্ব্রম, তালন্দ ইউনিয়ন এর সভাপতি জেঠা টুডু, ভুক্তভূগির পিতা শুকুমার কিস্কু, উত্তর বঙ্গ শিশু উন্নয়ন প্রকল্পের ম্যানেজার গণেশ মার্ডি, পাহাড়িয়া ভাষা গবেষক অভিলাশ বিশ্বাস, রুলফাও তানোর আঞ্চলিক এনজিওর সুপার ভাইজার শুম্ভনাথ দাস, সিনিয়র ওয়ার্কার আব্দুর রহমান, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ মহানগর কমিটির সাধারন সম্পাদক ছোটন সরদার, মহিলা সদস্য শেফালী হেম্ব্রম সহ প্রমুখ।

বক্তারা অবিলম্বে ধর্ষনকারী জনিকে আটকের দাবি জানান। শুধু তাই না মামলা তুলে নিতে ভূক্তভূগি ও তার পরিবারকে নানা ভাবে হুমকি ধূমকি দেন আসামীর পরিবার।

তবে ধর্ষনের সহযোগী আলীকে গ্রেফতার করতে পারলেও মুলহোতা জনিকে গ্রেফতার করতে পারেন নি পুলিশ। দ্রুত সময়ের মধ্যে জনিকে ২৪ঘন্টার মধ্যে আটক করতে না পারলে আমাদের আন্দোলন জোরতাল ভাবে চলবে বলেও হুশিয়ারি দেন আদিবাসী জনসাধারণ ও নেত্রীবৃন্দ ।

গত মাসের ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ শনিবার ধর্ষনের ঘটনার এত দিন হলেও এখনো কেন ধর্ষণের মূল হোতা আসামী জনিকে আটক করা হয়নি বলে প্রশাসনকে জবাব দিতে বলেন নেত্রীবৃন্দ। অথচ ঘটনার চারদিন পর সহযোগী আলীকে ঢাকা থেকে আটক করেছে পুলিশ। কিন্তু জনি এখনো পলাতক।

মূলহোতা জনির শাস্তির দাবিতে মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, আদিবাসী সম্প্রদায়ের বিভিন্ন পর্যায়ের জনসাধারণ থেকে শুরু করে অঙ্গ সংগঠনের এবং সংস্থার নেত্রীবৃন্দ ।

পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে প্রসঙ্গনিউজ  তানোর থানার ওসির কাছে বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন,  একজন আসামী কে গ্রেফতার করা হয়েছে অপরজনকে গ্রেফতারে জোর অভিযান চলছে, দ্রুত সময়ের মধ্যে তাকেও গ্রেফতার করা হবে।

প্রসঙ্গত, গত মাসের ১৬ সেপ্টেম্বর শনিবার কলমা ইউপির আদিবাসী সাওতাল নাবালিকা নারী তার ভাইকে নিয়ে খাড়ির পার্শ্বে খাস কাটতে যান। এসময় পার্শের জমিতে কাজ করছিল কলমা ইউপির শালবাড়ি গ্রামের মোহাম্মাদ আলী ও জনি। মোহাম্মদ ওই নারীর ভাইকে বেধে রাখেন আর আলেক চানের পুত্র জনি ধর্ষণ করেন। ওই দিন রাতই ওই নারী পিতা থানায় মামলা করেন। মামলার প্রেক্ষিতে ২০ সেপ্টেম্বর ঢাকায় আটক হন মোহাম্মদ আলী। কিন্তু ধর্ষনকারী এখনো আটক হয়নি।


প্রসঙ্গনিউজবিডি/জে.সি