ঢাকা ০৫:৫১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আদিবাসী নেতা ও শতাব্দীদের শিক্ষা গ্রহণের সক্রিয়নেতার স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্ট

খ্রীষ্টফার জয়
  • আপডেট সময় : ০৩:৫০:০০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১০৮ বার পড়া হয়েছে

আদিবাসী নেতা ও শতাব্দীদের শিক্ষা গ্রহণের সক্রিয়নেতার স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহী মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্টেডিয়ামে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সাগরাম মাঝি স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্ট প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত হয়। টুর্নামেন্ট ডি.জে. রাজশাহী আদিবাসী ফুটবল ক্লাব ঢাকা এফসিকে ২-০গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

দিনব্যাপি এই টুর্নামেন্টটি সকাল ৯.৩০ মিনিটে উদ্বোধন হয়। টুর্নামেন্টে মোট আটটি দল অংশ গ্রহন করে। রাজশাহী জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আনিসুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও বেলুন-ফেস্টুন উড়িয়ে টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন।

তিনি তার বক্তব্যে বলেন, উত্তরবঙ্গের ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠীর একটি সংগঠন আদিবাসী স্পোটিং এসোসিয়েশন। এমন ব্যতিক্রম উদ্যোগ সত্যি প্রশংসার দাবিদার। আগামীতে এমন খেলাধুলার মাধ্যমে মাদক মুক্ত সমাজ গঠনে এই ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠীর ভাই বন্ধুরা বড় ভূমিকা রাখবে। একই সাথে খেলাধুলার চর্চা মধ্য দিয়ে একদিন এরাই বাংলাদেকে ও নিজ জাতিকে প্রতিনিধিত্ব করবে এমনি প্রত্যাশা।

দিনব্যাপি খেলা শেষে চুড়ান্ত পর্বের খেলায় বিজয়ী ও রানার-আপ দলের মধ্যে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার প্রদান করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ রাজশাহী মহানগরের সিনিয়র সহ-সভাপতি সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনি। আদিবাসী স্পোটিং এসোসিয়েশনের আয়োজনে উদ্বোধন ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অত্র এসোসিয়েশনের সভাপতি বেনজামিন টুডু।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের উপ-সচিব দেবেন্দ্র নাথ উরাও, রাজশাহী জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) ও রাজশাহী বিভাগীয় ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠির কালচারাল একাডেমির উপপরিচালক কল্যান চৌধুরী, কারিতাস বাংলাদেশ রাজশাহীর আঞ্চলিক পরিচালক ডেভিড হেম্ব্রম, রাজশাহী জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ওয়াহেদুন নবী, আদিবাসী স্পোটিং এসোসিয়েশনের উপদেষ্টা এডভোকেট নরেন্দ্র নাথ টুডু, মেরিনা হাঁসদা, শেলি প্রিসিল্লা বিশ্বাস, কেরিনা মারান্ডি, চিত্তরঞ্জন সরদার ও আদিবাসী স্পোটিং এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ভাদু বাস্কে।

আরো উপস্থিত ছিলেন অত্র এসোসিয়েশনের কোষাধ্যক্ষ সামসন হাঁসদা, সদস্য মুকুল টুডু, পল টুডু, মানুয়েল সরেন, সবিতা টুডু, সামুয়েল বাস্কে, যাকারিয়াস মুর্মু, গাব্রিয়েল মারান্ডী, সীমা কিস্কু, স্বপন হেম্ব্রম, সুজানা সরেন, মিখায়েল টুডু ও সুবাস টুডুসহ অন্যান্য আদিবাসী নেতৃবৃন্দ ও শত শত দর্শক উপস্থিত ছিলেন।

খেলা চলাকানীন সময়ে উপদেষ্টা মন্ডলীর পক্ষ্য থেকে বক্তব্য দেন কারিতাস অঞ্চল রাজশাহীর আঞ্চলিক পরিচালক ডেভিড হেম্ব্রম। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, খেলাধুলার পাশাপাশি সকলের সার্বিক প্রচেষ্টায় সংগঠনের মাধ্যমে ভালোকিছু পাওয়া সম্ভব। বর্তমানে আমাদের তরুণ প্রজন্ম বিপথে বেশি ধাবিত হচ্ছে। আর এই খেলাধুলা কিন্তু তাদের সেই বিপথ থেকে সুপথে নিয়ে আসবে। যা আমাদের প্রত্যেকের প্রচেষ্টা । তাও দিন শেষে একটা প্রাপ্তির জায়গা থাকবে যে আমারা তরুণ প্রজন্মের জন্য কিছু একটা করতে পেরেছি।

পরবর্তীতে খেলা শেষে পুরস্কার বিতরনের পূর্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শাহীন আকতার রেনি বলেন, এবারে ছেলেদের খেলা হয়েছে, আগামীতে মেয়েদেরও খেলা হবে। আর এই খেলার জন্য তাঁর সহযোগিতা থাকবে। মহান এই নেতাকে শতাব্দির পর শতাব্দি মনে রাখার জন্য এই ধরনের টুর্নামেন্ট করা অত্যন্ত প্রয়োজন। তিনি আরো বলেন, জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান খেলাধুলা অত্যন্ত পছন্দ করতেন। তেমনি তাঁর সুযোগ্য কন্যা তিনবারের বাংলাদেশের সফল প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাও প্রচন্ডভাবে খেলাধুলা পছন্দ করেন। তাঁর সার্বিক সহযোগিতায় ক্রিকেটসহ অন্যান্য খেলায় বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেছে। ক্রিকেটে বাংলাদেশ অনেক ভাল করছে।

তিনি বলেন, রাজশাহীতে খেলাধুলার উন্নয়নে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। এই ধারা অব্যাহত রাখতে তাঁদের সর্বাত্বক সহযোগিতা থাকবে বলে আশা প্রদান করেন।

বক্তব্য শেষে তিনি বিজয়ী ও রানার-আপ দলের মধ্যে নগদ অর্থ ও ট্রফি প্রদান করেন। খেলায় সর্বোচ্চ গোলদাতা হন বিজয়ী দলের রাফায়েল। তিনি এই টুর্নামেন্টে হ্যাট্রিকসহ মোট পাঁচটি গোল করেন। এছাড়াও বিজয়ী দলের গাব্রিয়েল হাঁসদা ম্যান অব ম্যাচ এবং ম্যান অব টুর্নামেন্ট হন শান্ত।


প্রসঙ্গনিউজবিডি/জে.সি

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

আদিবাসী নেতা ও শতাব্দীদের শিক্ষা গ্রহণের সক্রিয়নেতার স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্ট

আপডেট সময় : ০৩:৫০:০০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহী মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্টেডিয়ামে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সাগরাম মাঝি স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্ট প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত হয়। টুর্নামেন্ট ডি.জে. রাজশাহী আদিবাসী ফুটবল ক্লাব ঢাকা এফসিকে ২-০গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

দিনব্যাপি এই টুর্নামেন্টটি সকাল ৯.৩০ মিনিটে উদ্বোধন হয়। টুর্নামেন্টে মোট আটটি দল অংশ গ্রহন করে। রাজশাহী জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আনিসুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও বেলুন-ফেস্টুন উড়িয়ে টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন।

তিনি তার বক্তব্যে বলেন, উত্তরবঙ্গের ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠীর একটি সংগঠন আদিবাসী স্পোটিং এসোসিয়েশন। এমন ব্যতিক্রম উদ্যোগ সত্যি প্রশংসার দাবিদার। আগামীতে এমন খেলাধুলার মাধ্যমে মাদক মুক্ত সমাজ গঠনে এই ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠীর ভাই বন্ধুরা বড় ভূমিকা রাখবে। একই সাথে খেলাধুলার চর্চা মধ্য দিয়ে একদিন এরাই বাংলাদেকে ও নিজ জাতিকে প্রতিনিধিত্ব করবে এমনি প্রত্যাশা।

দিনব্যাপি খেলা শেষে চুড়ান্ত পর্বের খেলায় বিজয়ী ও রানার-আপ দলের মধ্যে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার প্রদান করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ রাজশাহী মহানগরের সিনিয়র সহ-সভাপতি সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনি। আদিবাসী স্পোটিং এসোসিয়েশনের আয়োজনে উদ্বোধন ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অত্র এসোসিয়েশনের সভাপতি বেনজামিন টুডু।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের উপ-সচিব দেবেন্দ্র নাথ উরাও, রাজশাহী জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) ও রাজশাহী বিভাগীয় ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠির কালচারাল একাডেমির উপপরিচালক কল্যান চৌধুরী, কারিতাস বাংলাদেশ রাজশাহীর আঞ্চলিক পরিচালক ডেভিড হেম্ব্রম, রাজশাহী জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ওয়াহেদুন নবী, আদিবাসী স্পোটিং এসোসিয়েশনের উপদেষ্টা এডভোকেট নরেন্দ্র নাথ টুডু, মেরিনা হাঁসদা, শেলি প্রিসিল্লা বিশ্বাস, কেরিনা মারান্ডি, চিত্তরঞ্জন সরদার ও আদিবাসী স্পোটিং এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ভাদু বাস্কে।

আরো উপস্থিত ছিলেন অত্র এসোসিয়েশনের কোষাধ্যক্ষ সামসন হাঁসদা, সদস্য মুকুল টুডু, পল টুডু, মানুয়েল সরেন, সবিতা টুডু, সামুয়েল বাস্কে, যাকারিয়াস মুর্মু, গাব্রিয়েল মারান্ডী, সীমা কিস্কু, স্বপন হেম্ব্রম, সুজানা সরেন, মিখায়েল টুডু ও সুবাস টুডুসহ অন্যান্য আদিবাসী নেতৃবৃন্দ ও শত শত দর্শক উপস্থিত ছিলেন।

খেলা চলাকানীন সময়ে উপদেষ্টা মন্ডলীর পক্ষ্য থেকে বক্তব্য দেন কারিতাস অঞ্চল রাজশাহীর আঞ্চলিক পরিচালক ডেভিড হেম্ব্রম। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, খেলাধুলার পাশাপাশি সকলের সার্বিক প্রচেষ্টায় সংগঠনের মাধ্যমে ভালোকিছু পাওয়া সম্ভব। বর্তমানে আমাদের তরুণ প্রজন্ম বিপথে বেশি ধাবিত হচ্ছে। আর এই খেলাধুলা কিন্তু তাদের সেই বিপথ থেকে সুপথে নিয়ে আসবে। যা আমাদের প্রত্যেকের প্রচেষ্টা । তাও দিন শেষে একটা প্রাপ্তির জায়গা থাকবে যে আমারা তরুণ প্রজন্মের জন্য কিছু একটা করতে পেরেছি।

পরবর্তীতে খেলা শেষে পুরস্কার বিতরনের পূর্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শাহীন আকতার রেনি বলেন, এবারে ছেলেদের খেলা হয়েছে, আগামীতে মেয়েদেরও খেলা হবে। আর এই খেলার জন্য তাঁর সহযোগিতা থাকবে। মহান এই নেতাকে শতাব্দির পর শতাব্দি মনে রাখার জন্য এই ধরনের টুর্নামেন্ট করা অত্যন্ত প্রয়োজন। তিনি আরো বলেন, জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান খেলাধুলা অত্যন্ত পছন্দ করতেন। তেমনি তাঁর সুযোগ্য কন্যা তিনবারের বাংলাদেশের সফল প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাও প্রচন্ডভাবে খেলাধুলা পছন্দ করেন। তাঁর সার্বিক সহযোগিতায় ক্রিকেটসহ অন্যান্য খেলায় বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেছে। ক্রিকেটে বাংলাদেশ অনেক ভাল করছে।

তিনি বলেন, রাজশাহীতে খেলাধুলার উন্নয়নে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। এই ধারা অব্যাহত রাখতে তাঁদের সর্বাত্বক সহযোগিতা থাকবে বলে আশা প্রদান করেন।

বক্তব্য শেষে তিনি বিজয়ী ও রানার-আপ দলের মধ্যে নগদ অর্থ ও ট্রফি প্রদান করেন। খেলায় সর্বোচ্চ গোলদাতা হন বিজয়ী দলের রাফায়েল। তিনি এই টুর্নামেন্টে হ্যাট্রিকসহ মোট পাঁচটি গোল করেন। এছাড়াও বিজয়ী দলের গাব্রিয়েল হাঁসদা ম্যান অব ম্যাচ এবং ম্যান অব টুর্নামেন্ট হন শান্ত।


প্রসঙ্গনিউজবিডি/জে.সি