ঢাকা ১২:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তানোরে গ্রামীণ কার্লভাটে ভয়াবহ ভাঙ্গন ঝুঁকি নিয়ে চলাচল

সারোয়ার হোসেন
  • আপডেট সময় : ০৫:০৮:৪৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২২ অগাস্ট ২০২৩ ১২৪ বার পড়া হয়েছে

তানোর প্রতিনিধি:


রাজশাহীর তানোর পৌরসভার গোকুল গ্রামে প্রবেশের রাস্তার কার্লভাটে ভয়াবহ ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়েছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। তানোর টু তালন্দ মুল সড়ক সংলগ্ন গোকুল গ্রামে যাওয়ার রাস্তায় ঘটে রয়েছে ভাঙ্গনের ঘটনাটি। এমন ভাবেই ভেঙ্গেছে তিন চার চাকার ছোট যান চলাচলও করতে পারছেনা। এতে করে চরম ঝুঁকি নিয়ে চলতে হচ্ছে চালকদের। ফলে কার্লভাটটি দ্রুত মেরামত করা না হলে ভয়াবহ দূর্ঘটনার আশংকা করছেন গাড়ী চালকরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, পৌর এলাকার তানোর টু তালন্দ রাস্তার চাপড়া ব্রীজ পার হয়ে গোকুল গ্রামে যাওয়ার রাস্তা। মুল সড়কের পূর্বদিকে গোকুলগ্রাম। গ্রামে রয়েছে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দাখিল মাদ্রাসা । তালন্দ থেকে আসার পথে গোকুল গ্রামে প্রবেশের রাস্তায় যানজট দেখা যায়। একব্যক্তি চার চাকার মাইক্রো নিয়ে গোকুল গ্রামে যাওয়ার জন্য মাইক্রোটি পার করার চেষ্টা চলছিল। কিন্তু পার করতে পারছেনা। বেশ কিছু সময় চেষ্টার পরে গাড়িটি পার হয়। এর ফাঁকেই তিন চাকার ভ্যানগাড়ী আটকে যায়। কার্লভাটের দক্ষিণ দিক থেকে ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়ে কয়েক হাত চলে গেছে এবং ভাঙ্গতেই আছে।

একাধিক চালকরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, অনেক দিন ধরে অল্প পরিমান ভেঙ্গে ছিল ওই সময় মেয়র ইমরুল কে অবহিত করে ছিলাম। কিন্তু এত দিনেও কোন গুরুত্ব দেন নি। যার ফলে ভেঙ্গে ভেঙ্গে বড় আকার ধারণ করেছে। বর্তমানে কার্লভাটটির অবস্থা এতই ভয়ানক পার হতে ভয় লাগছে। আর রাতের অন্ধকারে ভয়ে কেউ যায় না। তালন্দ বাজার দিয়ে অনেক ঘুরে আসতে হচ্ছে। গ্রামে হাজার হাজার পরিবারের বসবাস।

রাতে কোন রোগীকে ইমারজেন্সি ভাবে কার্লভাট দিয়ে পার করা যাবেনা। অথচ তালন্দ স্কুল সংলগ্ন সার ব্যবসায়ী বাবুর বাড়ির দক্ষিণে মাটির রাস্তায় অযথা কার্লভাট নির্মান করেছে পৌরসভা থেকে। মাটির রাস্তা বোরো ধান উত্তোলনের সময় যান চলাচল করে। এখন বোরোর আবাদ নেই অযথা নির্মাণ করে বসে আছে। আর গোকুল গ্রামের কার্লভাটের রাস্তা দিয়ে শিক্ষক শিক্ষার্থীসহ হাজারো মানুষের চলাচল ও শতশত যান চলে প্রতি নিয়তই। এত গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার কার্লভাট নির্মান না করে কেন মাটির রাস্তায় কার্লভাট নির্মান করলেন, কার ইশারায় মেয়র এসব অজায়গায় উন্নয়ন করছেন বুঝে আসে না এমন নানা প্রশ্ন বিরাজ মান । সপ্তাহে বুধবার ও রবিবার তালন্দ হাট এবং শুক্রবার, মঙ্গলবার গোল্লাপাড়া হাটের দিন। আজ মঙ্গলবার হাটের দিনে বেশ কয়েকটি তিন চাকার ভ্যান বিকল হয়ে পড়েছে।

ওই ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রবীন ব্যক্তি নাজিমুদ্দিন বলেন, গোকুল গ্রামের রাস্তার প্রবেশদ্বারের কার্লভাটটির অবস্থা খুবই খারাপ। আমি মেয়রকে বলেছি, কিন্তু তেমন ভাবে গুরুত্ব দিচ্ছেনা। আমি ব্যক্তিগত ভাবে হলেও অল্প কয়েকদিনের মধ্যে চলাচলের ব্যবস্থা করে দিব।
পৌর মেয়র ইমরুল হক জানান, নতুনভাবে কার্লভাটটি নির্মানের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে। অল্পদিনের মধ্যেই কাজ শুরু হবে এবং আগামী জুনের মধ্যে পৌরসভার কোন রাস্তা মাটির থাকবে না, সব রাস্তা পাকা করা হবে, ড্রেন কার্লভাটের কোন সমস্যা থাকবে না।


প্রসঙ্গনিউজবিডি/জে.সি

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

তানোরে গ্রামীণ কার্লভাটে ভয়াবহ ভাঙ্গন ঝুঁকি নিয়ে চলাচল

আপডেট সময় : ০৫:০৮:৪৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২২ অগাস্ট ২০২৩

তানোর প্রতিনিধি:


রাজশাহীর তানোর পৌরসভার গোকুল গ্রামে প্রবেশের রাস্তার কার্লভাটে ভয়াবহ ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়েছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। তানোর টু তালন্দ মুল সড়ক সংলগ্ন গোকুল গ্রামে যাওয়ার রাস্তায় ঘটে রয়েছে ভাঙ্গনের ঘটনাটি। এমন ভাবেই ভেঙ্গেছে তিন চার চাকার ছোট যান চলাচলও করতে পারছেনা। এতে করে চরম ঝুঁকি নিয়ে চলতে হচ্ছে চালকদের। ফলে কার্লভাটটি দ্রুত মেরামত করা না হলে ভয়াবহ দূর্ঘটনার আশংকা করছেন গাড়ী চালকরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, পৌর এলাকার তানোর টু তালন্দ রাস্তার চাপড়া ব্রীজ পার হয়ে গোকুল গ্রামে যাওয়ার রাস্তা। মুল সড়কের পূর্বদিকে গোকুলগ্রাম। গ্রামে রয়েছে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দাখিল মাদ্রাসা । তালন্দ থেকে আসার পথে গোকুল গ্রামে প্রবেশের রাস্তায় যানজট দেখা যায়। একব্যক্তি চার চাকার মাইক্রো নিয়ে গোকুল গ্রামে যাওয়ার জন্য মাইক্রোটি পার করার চেষ্টা চলছিল। কিন্তু পার করতে পারছেনা। বেশ কিছু সময় চেষ্টার পরে গাড়িটি পার হয়। এর ফাঁকেই তিন চাকার ভ্যানগাড়ী আটকে যায়। কার্লভাটের দক্ষিণ দিক থেকে ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়ে কয়েক হাত চলে গেছে এবং ভাঙ্গতেই আছে।

একাধিক চালকরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, অনেক দিন ধরে অল্প পরিমান ভেঙ্গে ছিল ওই সময় মেয়র ইমরুল কে অবহিত করে ছিলাম। কিন্তু এত দিনেও কোন গুরুত্ব দেন নি। যার ফলে ভেঙ্গে ভেঙ্গে বড় আকার ধারণ করেছে। বর্তমানে কার্লভাটটির অবস্থা এতই ভয়ানক পার হতে ভয় লাগছে। আর রাতের অন্ধকারে ভয়ে কেউ যায় না। তালন্দ বাজার দিয়ে অনেক ঘুরে আসতে হচ্ছে। গ্রামে হাজার হাজার পরিবারের বসবাস।

রাতে কোন রোগীকে ইমারজেন্সি ভাবে কার্লভাট দিয়ে পার করা যাবেনা। অথচ তালন্দ স্কুল সংলগ্ন সার ব্যবসায়ী বাবুর বাড়ির দক্ষিণে মাটির রাস্তায় অযথা কার্লভাট নির্মান করেছে পৌরসভা থেকে। মাটির রাস্তা বোরো ধান উত্তোলনের সময় যান চলাচল করে। এখন বোরোর আবাদ নেই অযথা নির্মাণ করে বসে আছে। আর গোকুল গ্রামের কার্লভাটের রাস্তা দিয়ে শিক্ষক শিক্ষার্থীসহ হাজারো মানুষের চলাচল ও শতশত যান চলে প্রতি নিয়তই। এত গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার কার্লভাট নির্মান না করে কেন মাটির রাস্তায় কার্লভাট নির্মান করলেন, কার ইশারায় মেয়র এসব অজায়গায় উন্নয়ন করছেন বুঝে আসে না এমন নানা প্রশ্ন বিরাজ মান । সপ্তাহে বুধবার ও রবিবার তালন্দ হাট এবং শুক্রবার, মঙ্গলবার গোল্লাপাড়া হাটের দিন। আজ মঙ্গলবার হাটের দিনে বেশ কয়েকটি তিন চাকার ভ্যান বিকল হয়ে পড়েছে।

ওই ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রবীন ব্যক্তি নাজিমুদ্দিন বলেন, গোকুল গ্রামের রাস্তার প্রবেশদ্বারের কার্লভাটটির অবস্থা খুবই খারাপ। আমি মেয়রকে বলেছি, কিন্তু তেমন ভাবে গুরুত্ব দিচ্ছেনা। আমি ব্যক্তিগত ভাবে হলেও অল্প কয়েকদিনের মধ্যে চলাচলের ব্যবস্থা করে দিব।
পৌর মেয়র ইমরুল হক জানান, নতুনভাবে কার্লভাটটি নির্মানের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে। অল্পদিনের মধ্যেই কাজ শুরু হবে এবং আগামী জুনের মধ্যে পৌরসভার কোন রাস্তা মাটির থাকবে না, সব রাস্তা পাকা করা হবে, ড্রেন কার্লভাটের কোন সমস্যা থাকবে না।


প্রসঙ্গনিউজবিডি/জে.সি