ঢাকা ০৯:৫১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গলায় ফাঁস দেওয়া স্ত্রীকে বাঁচিয়ে স্বামীর আত্মহত্যা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:০৬:৩৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ মার্চ ২০২৪ ৪৩ বার পড়া হয়েছে

নিউজ ডেস্ক:


পারিবারিক কলহের জেরে সাতক্ষীরার ঝুটিতলায় গলায় ফাঁস দেওয়া স্ত্রী রুপা খাতুনকে বাঁচিয়ে নিজে আত্মহত্যা করেছেন সোহেল রানা (২৫) নামের এক যুবক। সোমবার (১৮ মার্চ) দুপুরে ঘটনাটি ঘটে। গুরুতর রুপা খাতুন বর্তমানে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

মারা যাওয়া সোহেল রানা শ্যামনগর উপজেলার খুটিকাটা গ্রামের মহসীন আলীর ছেলে। তিনি পেশায় ঘের ব্যবসায়ী। তিনি সাতক্ষীরা পৌরসভার ঝুটিতলা এলাকায় বসবাস করতেন।

সোহেল রানার প্রতিবেশী কাঞ্চন রহমান এবং অন্যরা জনান, সোহেল-রুপা দম্পতির মধ্যে প্রায়ই পারিবারিক কলহ লেগে থাকতো। সোমবার দুপুরে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। পরে ছেলেকে নিয়ে নিকটবর্তী এলাকায় বেড়াতে যান সোহেল রানা। আধা ঘণ্টা পর বাড়িতে এসে তিনি স্ত্রী রুপা খাতুনকে ফ্যানের সঙ্গে গলায় দড়ি দেওয়া অবস্থায় দেখতে পান। দ্রুত স্ত্রীকে ঝুলন্ত অবস্থা থেকে নামিয়ে খাটে শুয়ে রাখেন। স্ত্রীকে অচেতন অবস্থায় দেখে তিনি (সোহেল রানা) মনে করেন তার স্ত্রী মারা গেছেন। পরে সোহেল রানাও একই ফ্যানে গলায় দড়ি দিয়ে ঝুলে পড়েন। প্রতিবেশীরা এসে পরে তাদের দুইজনকে সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক সোহেল রানাকে মৃত ঘোষণা করেন। অচেতন অবস্থায় রুপা খাতুনকে সদর হাসপাতালের মহিলা ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।

রুপা খাতুনের মা মঞ্জুয়ারা খাতুন বলেন, মেয়ের জ্ঞান ফিরেছে। সে ভালো রয়েছে। জামাই সোহেল রানার মৃত্যুতে তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন।

সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মহিদুল ইসলাম বলেন, সোহেল রানার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এবিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


প্রসঙ্গনিউজ২৪/জে.সি

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

গলায় ফাঁস দেওয়া স্ত্রীকে বাঁচিয়ে স্বামীর আত্মহত্যা

আপডেট সময় : ০৩:০৬:৩৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ মার্চ ২০২৪

নিউজ ডেস্ক:


পারিবারিক কলহের জেরে সাতক্ষীরার ঝুটিতলায় গলায় ফাঁস দেওয়া স্ত্রী রুপা খাতুনকে বাঁচিয়ে নিজে আত্মহত্যা করেছেন সোহেল রানা (২৫) নামের এক যুবক। সোমবার (১৮ মার্চ) দুপুরে ঘটনাটি ঘটে। গুরুতর রুপা খাতুন বর্তমানে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

মারা যাওয়া সোহেল রানা শ্যামনগর উপজেলার খুটিকাটা গ্রামের মহসীন আলীর ছেলে। তিনি পেশায় ঘের ব্যবসায়ী। তিনি সাতক্ষীরা পৌরসভার ঝুটিতলা এলাকায় বসবাস করতেন।

সোহেল রানার প্রতিবেশী কাঞ্চন রহমান এবং অন্যরা জনান, সোহেল-রুপা দম্পতির মধ্যে প্রায়ই পারিবারিক কলহ লেগে থাকতো। সোমবার দুপুরে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। পরে ছেলেকে নিয়ে নিকটবর্তী এলাকায় বেড়াতে যান সোহেল রানা। আধা ঘণ্টা পর বাড়িতে এসে তিনি স্ত্রী রুপা খাতুনকে ফ্যানের সঙ্গে গলায় দড়ি দেওয়া অবস্থায় দেখতে পান। দ্রুত স্ত্রীকে ঝুলন্ত অবস্থা থেকে নামিয়ে খাটে শুয়ে রাখেন। স্ত্রীকে অচেতন অবস্থায় দেখে তিনি (সোহেল রানা) মনে করেন তার স্ত্রী মারা গেছেন। পরে সোহেল রানাও একই ফ্যানে গলায় দড়ি দিয়ে ঝুলে পড়েন। প্রতিবেশীরা এসে পরে তাদের দুইজনকে সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক সোহেল রানাকে মৃত ঘোষণা করেন। অচেতন অবস্থায় রুপা খাতুনকে সদর হাসপাতালের মহিলা ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।

রুপা খাতুনের মা মঞ্জুয়ারা খাতুন বলেন, মেয়ের জ্ঞান ফিরেছে। সে ভালো রয়েছে। জামাই সোহেল রানার মৃত্যুতে তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন।

সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মহিদুল ইসলাম বলেন, সোহেল রানার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এবিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


প্রসঙ্গনিউজ২৪/জে.সি