ঢাকা ১০:০৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন কার্যক্রমের সিটি কর্পোরেশন ট্রাস্কফোর্স কমিটির আলোচনা সভায় অনুষ্ঠিত

খ্রীষ্টফার জয়
  • আপডেট সময় : ০২:৩৭:৪০ অপরাহ্ন, রবিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৮২ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের আয়োজনে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন কার্যক্রমের সিটি কর্পোরেশন ট্রাস্কফোর্স কমিটির আলোচনা সভায় অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে নগর ভবনের সিটি হলরুমে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সচিব মোঃ মোবারক হোসেন।

সভায় বক্তব্য রাখেন রাসিকের জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রজব আলী, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন। কর্মসূচির উপর স্বাগত বক্তব্য দেন ও কার্যক্রমের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করেন রাসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এফ.এ.এম আঞ্জুমান আরা বেগম।

সভায় রাসিকের প্যানেল মেয়র-২ ও ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মমিন, প্যানেল মেয়র-৩ তাহেরা খাতুন মিলি সহ বিভিন্ন ওয়ার্ড কাউন্সিলরবৃন্দ, জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন কর্মকর্তা নাজমা খাতুন সহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন। সঞ্চালনা করেন ফুড এন্ড স্যানিটেশন অফিসার শেখ আরিফুল হক।

সভায় বক্তারা বলেন, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন বিধিমালা, ৮ মার্চ-২০১৮ অনুযায়ী শিশু জন্মের ৪৫ দিনের মধ্যে শিশুর জন্ম নিবন্দন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে এবং মৃত্যুবরণকারী সকল ব্যক্তির মৃত্যুর ৪৫ দিনের মধ্যে মৃত্যু নিবন্ধন ৮০% নিশ্চিত করতে হবে। জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের নিবন্ধক সম্মানিত কাউন্সিলরবৃন্দ। সাধারণত ওয়ার্ড পর্যায়ে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন কার্যক্রম সর্ম্পর্ণ করা হয়। জন্ম নিবন্ধন করলে ১৮টি সুযোগ-সুবিধা এবং মৃত্যু নিবন্ধন করলে ৪টি সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যায়।

সভায় বক্তারা বলেন, মাননীয় মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের নেতৃত্বে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সুনাম অর্জন করেছে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক)। জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনে পরপর দুইবার দেশসেরা হয়েছে রাসিক। এই অর্জন ধরে রাখতে হবে।

সভায় জন্ম গ্রহণকারী সকল শিশুর ০-৪৫ দিনের মধ্যে জন্ম নিবন্ধন ১০০% নিশ্চিতকরণ, মৃত্যুবরণকারী সকল ব্যক্তির মৃত্যুর ৪৫ দিনের মধ্যে মৃত্যু নিবন্ধন ৮০% নিশ্চিতকরণ, সকল জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের হার বৃদ্ধি, জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের রিপোর্ট এবং টাকা জমাদানের চালানের কপি প্রতিমাসের ১ তারিখে স্বাস্থ্য বিভাগে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন শাখায় জমা প্রদান, প্রতি সপ্তাহে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের রিপোর্ট টিমলিডারদের দ্বারা জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন শাখায় জমা প্রদান, রাজশাহী বিভাগীয় জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন টাস্কফোর্সের সভায় কার্যবিবরণী অনুযায়ী রাসিক এর জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের হার শতভাগ বাস্তবায়নে করণীয় বিষয়ে আলোচনা করা হয়।


প্রসঙ্গনিউজ২৪/জে.সি

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন কার্যক্রমের সিটি কর্পোরেশন ট্রাস্কফোর্স কমিটির আলোচনা সভায় অনুষ্ঠিত

আপডেট সময় : ০২:৩৭:৪০ অপরাহ্ন, রবিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের আয়োজনে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন কার্যক্রমের সিটি কর্পোরেশন ট্রাস্কফোর্স কমিটির আলোচনা সভায় অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে নগর ভবনের সিটি হলরুমে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সচিব মোঃ মোবারক হোসেন।

সভায় বক্তব্য রাখেন রাসিকের জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রজব আলী, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন। কর্মসূচির উপর স্বাগত বক্তব্য দেন ও কার্যক্রমের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করেন রাসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এফ.এ.এম আঞ্জুমান আরা বেগম।

সভায় রাসিকের প্যানেল মেয়র-২ ও ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মমিন, প্যানেল মেয়র-৩ তাহেরা খাতুন মিলি সহ বিভিন্ন ওয়ার্ড কাউন্সিলরবৃন্দ, জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন কর্মকর্তা নাজমা খাতুন সহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন। সঞ্চালনা করেন ফুড এন্ড স্যানিটেশন অফিসার শেখ আরিফুল হক।

সভায় বক্তারা বলেন, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন বিধিমালা, ৮ মার্চ-২০১৮ অনুযায়ী শিশু জন্মের ৪৫ দিনের মধ্যে শিশুর জন্ম নিবন্দন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে এবং মৃত্যুবরণকারী সকল ব্যক্তির মৃত্যুর ৪৫ দিনের মধ্যে মৃত্যু নিবন্ধন ৮০% নিশ্চিত করতে হবে। জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের নিবন্ধক সম্মানিত কাউন্সিলরবৃন্দ। সাধারণত ওয়ার্ড পর্যায়ে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন কার্যক্রম সর্ম্পর্ণ করা হয়। জন্ম নিবন্ধন করলে ১৮টি সুযোগ-সুবিধা এবং মৃত্যু নিবন্ধন করলে ৪টি সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যায়।

সভায় বক্তারা বলেন, মাননীয় মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের নেতৃত্বে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সুনাম অর্জন করেছে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক)। জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনে পরপর দুইবার দেশসেরা হয়েছে রাসিক। এই অর্জন ধরে রাখতে হবে।

সভায় জন্ম গ্রহণকারী সকল শিশুর ০-৪৫ দিনের মধ্যে জন্ম নিবন্ধন ১০০% নিশ্চিতকরণ, মৃত্যুবরণকারী সকল ব্যক্তির মৃত্যুর ৪৫ দিনের মধ্যে মৃত্যু নিবন্ধন ৮০% নিশ্চিতকরণ, সকল জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের হার বৃদ্ধি, জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের রিপোর্ট এবং টাকা জমাদানের চালানের কপি প্রতিমাসের ১ তারিখে স্বাস্থ্য বিভাগে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন শাখায় জমা প্রদান, প্রতি সপ্তাহে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের রিপোর্ট টিমলিডারদের দ্বারা জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন শাখায় জমা প্রদান, রাজশাহী বিভাগীয় জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন টাস্কফোর্সের সভায় কার্যবিবরণী অনুযায়ী রাসিক এর জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের হার শতভাগ বাস্তবায়নে করণীয় বিষয়ে আলোচনা করা হয়।


প্রসঙ্গনিউজ২৪/জে.সি