ঢাকা ১০:৩৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্বামী স্ত্রীর কামড়ে আতঙ্কিত গ্রামবাসী বাদ যায়নি শিশু ও নারী

জাহিদুল
  • আপডেট সময় : ০৮:২৭:২৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ৫৮ বার পড়া হয়েছে

গোদাগাড়ী প্রতিনিধি :


রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে স্বামী স্ত্রীর কামড়ে আতঙ্কিত গ্রামবাসী বাদ যায়নি শিশুসহ নারীরাও। গোদাগাড়ী থানার প্রেমতুলি ডুমুরিয়া পালপাড়া এলাকায় একই পরিবারের চার জন সহ গ্রামের অনেকেই কামড়/মারধরের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করেন গ্রামবাসী।

অভিযোগ ও গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায়, দেলোয়ার হোসেন (৩২) পিতা আরশাদ, সালমা (২৮) স্বামী দেলোয়ার, স্বামী স্ত্রী উভয়ে ছোট ছোট বিষয় নিয়ে গ্রামের অনেককেই এরকম মারধর/কামড়ে দেয়। ভুক্তভোগী জাকির হাসান বলেন, আমার ছোট ভাগ্নি আখি (২) বাড়ির পাশে মাটি নিয়ে খেলছিলো, দেলোয়ার তার স্ত্রী সালমা সহ চারজন কোনো কারণ ছাড়াই আমার পরিবারকে তেড়ে মারতে আসে । পরবর্তীতে গ্রামবাসী বাধা দিলে তারা চলে যাই।

পরের দিন সকালে আমি যখন কাজের জন্য বাড়ি থেকে বের হয় তখন দেখি দেলোয়ার আমাদের সীমানায় বাঁশ পুঁতে দিচ্ছে এমন সময় আমি বাধা দিতে গেলে দেলোয়ার আতু ও দেলোয়ারের স্ত্রী সালমা আমাকে বাঁশের লাঠি দিয়ে পেটাতে শুরু করে এবং আমার বাম পাশে বাহুতে কামড় বসিয়ে দেয়।

আমার বোন কেউ দেলোয়ার লাঠি দিয়ে পেটাতে থাকে এবং তার বাম হাতের আঙ্গুল ও পিঠে কামড় দেয়। আমার ছোট ভাই বাঁচাতে এলে তাকেও বাঁশ দিয়ে পেটাতে থাকে এবং বাম হাতে কামড় বসিয়ে দেয়, আমার মা এগিয়ে এলে তাকেও এলোপাতাড়ি পেটাতে থাকে এবং তার সামনের দুটি দাঁত ভেঙে যায়! আমি এর সুষ্ঠ বিচার চাই।

গণমাধ্যম কর্মীরা ঘটনা স্থানে গেলে গ্রামবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, যে কাউকে যেকোনো সময় এভাবে মারধর করে দেলোয়ার। স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার নয়নের কাছের লোক হওয়ায় কেউ তাকে কিছু বলার সাহস করতে পারেনা এমনকি প্রেমতলী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রেও তাদের নামে কোনো অভিযোগ নিতে চাই না, তবে এবার আমরা গ্রামবাসী একতাবদ্ধ হয়েছি তাদের একটি বিহিত করা দরকার। গ্রামবাসীর গণ স্বাক্ষরিত একটি কাগজ তুলে দেন গণমাধ্যম কর্মীদের হাতে।

এ বিষয় নিয়ে অভিযুক্ত দেলোয়ারের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমরা মার ধরে শিকার হয়েছি এবং একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি আইনে যেটা হয় সেটাই মেনে নিব। মাটিকাটা এক নাম্বার ওয়ার্ড মেম্বার নয়নের সাথে কথা হলে তিনি বলেন উভয় পক্ষকে নিয়ে বসে একটা সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

এই নিয়ে গত ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ তারিখে গোদাগাড়ী মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী জাকির হাসান। এই বিষয় নিয়ে গোদাগাড়ী মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ কামরুল ইসলাম বলেন, উভয়পক্ষের অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


প্রসঙ্গনিউজবিডি/জে.সি

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

স্বামী স্ত্রীর কামড়ে আতঙ্কিত গ্রামবাসী বাদ যায়নি শিশু ও নারী

আপডেট সময় : ০৮:২৭:২৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২৩

গোদাগাড়ী প্রতিনিধি :


রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে স্বামী স্ত্রীর কামড়ে আতঙ্কিত গ্রামবাসী বাদ যায়নি শিশুসহ নারীরাও। গোদাগাড়ী থানার প্রেমতুলি ডুমুরিয়া পালপাড়া এলাকায় একই পরিবারের চার জন সহ গ্রামের অনেকেই কামড়/মারধরের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করেন গ্রামবাসী।

অভিযোগ ও গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায়, দেলোয়ার হোসেন (৩২) পিতা আরশাদ, সালমা (২৮) স্বামী দেলোয়ার, স্বামী স্ত্রী উভয়ে ছোট ছোট বিষয় নিয়ে গ্রামের অনেককেই এরকম মারধর/কামড়ে দেয়। ভুক্তভোগী জাকির হাসান বলেন, আমার ছোট ভাগ্নি আখি (২) বাড়ির পাশে মাটি নিয়ে খেলছিলো, দেলোয়ার তার স্ত্রী সালমা সহ চারজন কোনো কারণ ছাড়াই আমার পরিবারকে তেড়ে মারতে আসে । পরবর্তীতে গ্রামবাসী বাধা দিলে তারা চলে যাই।

পরের দিন সকালে আমি যখন কাজের জন্য বাড়ি থেকে বের হয় তখন দেখি দেলোয়ার আমাদের সীমানায় বাঁশ পুঁতে দিচ্ছে এমন সময় আমি বাধা দিতে গেলে দেলোয়ার আতু ও দেলোয়ারের স্ত্রী সালমা আমাকে বাঁশের লাঠি দিয়ে পেটাতে শুরু করে এবং আমার বাম পাশে বাহুতে কামড় বসিয়ে দেয়।

আমার বোন কেউ দেলোয়ার লাঠি দিয়ে পেটাতে থাকে এবং তার বাম হাতের আঙ্গুল ও পিঠে কামড় দেয়। আমার ছোট ভাই বাঁচাতে এলে তাকেও বাঁশ দিয়ে পেটাতে থাকে এবং বাম হাতে কামড় বসিয়ে দেয়, আমার মা এগিয়ে এলে তাকেও এলোপাতাড়ি পেটাতে থাকে এবং তার সামনের দুটি দাঁত ভেঙে যায়! আমি এর সুষ্ঠ বিচার চাই।

গণমাধ্যম কর্মীরা ঘটনা স্থানে গেলে গ্রামবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, যে কাউকে যেকোনো সময় এভাবে মারধর করে দেলোয়ার। স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার নয়নের কাছের লোক হওয়ায় কেউ তাকে কিছু বলার সাহস করতে পারেনা এমনকি প্রেমতলী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রেও তাদের নামে কোনো অভিযোগ নিতে চাই না, তবে এবার আমরা গ্রামবাসী একতাবদ্ধ হয়েছি তাদের একটি বিহিত করা দরকার। গ্রামবাসীর গণ স্বাক্ষরিত একটি কাগজ তুলে দেন গণমাধ্যম কর্মীদের হাতে।

এ বিষয় নিয়ে অভিযুক্ত দেলোয়ারের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমরা মার ধরে শিকার হয়েছি এবং একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি আইনে যেটা হয় সেটাই মেনে নিব। মাটিকাটা এক নাম্বার ওয়ার্ড মেম্বার নয়নের সাথে কথা হলে তিনি বলেন উভয় পক্ষকে নিয়ে বসে একটা সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

এই নিয়ে গত ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ তারিখে গোদাগাড়ী মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী জাকির হাসান। এই বিষয় নিয়ে গোদাগাড়ী মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ কামরুল ইসলাম বলেন, উভয়পক্ষের অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


প্রসঙ্গনিউজবিডি/জে.সি