সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১০:৪০ পূর্বাহ্ন

শীতের চাদরে ফুলের সমারোহ 

রিপোর্টারের নাম
  • সময় : বুধবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২২
  • ৫৬ দেখেছেন

উম্মে সালমা: হেমন্তের প্রভাব বাড়ছে প্রকৃতিতে। সন্ধ্যার আঁধার এখন বেশ ঠান্ডা ঠান্ডা। প্রকৃতিতে চলে এসেছে শীতের হাওয়া। পুরোপুরি শীত না আসলেও শীতের হীমেল বাতাসে টের পাওয়া যাচ্ছে শীতের আগমনী বার্তা। আর শীত মানেই তো নানা রকম শাক-সবজি, ফল আর সেই সাথে বিভিন্ন রকম ফুলের সমারোহ।

বাংলাদেশ শীতের সময় নানা রঙের ফুল ফোটে। অনেক ফুল সারাবছর ফুটলেও কিছু ফুল আছে যেগুলো শুধুমাত্র শীতের সময় পাওয়া যায়। শীতের সকালের মিষ্টি রোদে সেসব ফুলের সৌন্দর্য যেন আরো বৃদ্ধি পায়।

ফুল ভালোবাসে না এমন মানুষ পাওয়া বিরল। আর শীত আসে বাহারি রঙের ফুলের ভেলায় চড়ে। নানা রকম বাহারি ফুলে ছেয়ে যায় প্রকৃতি। খুব সহজে বাসার আশেপাশে, ফ্ল্যাটের বারান্দায় বা ছাদে অল্প স্থানে চাষ করা যায় শীতকালীন ফুল।

শীতের ফুলের মধ্যে গাঁদা, ডালিয়া ও চন্দমল্লিকা অন্যতম। এছাড়া কসমস, পপি, গাজানিয়া, স্যালভিয়া, ডায়ান্থাস, ক্যালেন্ডুলা, পিটুনিয়া, ডেইজি, ভারবেনা, হেলিক্রিসাম, অ্যান্টিরিনাম, ন্যাস্টারশিয়াম, লুপিন, কারনেশন, প্যানজি, অ্যাস্টার ইত্যাদি ফুল ফোটে।

নভেম্বর মাস শীতকালীন ফুল লাগানোর উপযুক্ত সময়। দেশের বিভিন্ন নার্সারিতে এখন নানা রকমের শীতকালীন ফুলের চারা পাওয়া যাচ্ছে। এগুলোর আবার অনেক জাত আছে। বাসায় টবে লাগালে মাসখানেক পর থেকেই ফুল ফুটতে শুরু করে এবং জাত ভেদে মার্চ পর্যন্ত ফুল দেয়। যেমন চন্দ্রমল্লিকা ফুল অনেক দিন টবে থাকে। এছাড়া লতানো ফুল হলেও শীতে টবে লাগানো যায়। চারা লাগিয়ে টবের ভেতর কাঠি পুঁতে তারের রিং দিয়ে ছোট্ট মাচার মতো করে দিলেও দেখতে বেশ লাগে।

শীতের ফুল লাগানোর জন্য ৮ থেকে ১২ ইঞ্চি মাপের টব যথেষ্ট। ছোট আকৃতির গাছ যেমন ডায়ান্থাস, গাঁদা, পিটুনিয়া, গাজানিয়া ইত্যাদি ছোট টবে লাগানো যেতে পারে। তবে ডালিয়া, চন্দ্রমল্লিকা এগুলো ১০-১২ ইঞ্চি টবে লাগানো যায়। টবে মাটির সঙ্গে জৈব সার, কম্পোস্ট বা ভার্মিকম্পোস্ট মেশাতে হয়। তার মধ্যে পলিব্যাগের চারা লাগিয়ে চারার গোড়ার মাটি দুই হাতের আঙ্গুল দিয়ে চেপে শক্ত করে দিয়ে এরপর পানি দিতে হয়। গাছে পানি দেয়ার সময় শুধু গাছের গোড়ায় পানি না দিয়ে ঝাঁঝরি দিয়ে গাছের ওপর থেকে বৃষ্টির মতো গাছ-পাতা ভিজিয়ে নিয়মিত হালকা পানি দেয়া ভালো। এতে গাছ বেশি সতেজ থাকে। প্রয়োজন মতো গাছে কাঠি পুঁতে দিতে হবে যাতে হেলে না পড়ে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার.....

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর.....