শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:৫৫ অপরাহ্ন

অসময়ে বাড়ছে পদ্মা নদীর পানি

রিপোর্টারের নাম
  • সময় : মঙ্গলবার, ১৮ অক্টোবর, ২০২২
  • ৭ দেখেছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক : অসময়ে বাড়ছে পদ্মা নদীর পানি। প্রতিদিন ৩ থেকে ৫ সেন্টিমিটার হারে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে রাজশাহী অঞ্চলের চরের জমিতে রোপণ করা পেঁয়াজ, আখ, কপি ও টমেটোখেত ডুবে যাচ্ছে।

রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ডের হিসাব অনুযায়ী, সোমবার সকাল ছয়টায় রাজশাহী পয়েন্টে পদ্মার পানি ১৬ দশমিক ৪০ মিটার উচ্চতায় উঠেছে। আগের দিন রোববার দুপুর ১২টায় এই পয়েন্টে পদ্মা নদীর পানির উচ্চতা ছিল ১৬ দশমিক ৩৭ মিটার।

এ মৌসুমে সর্বোচ্চ পানি বেড়েছিল ৫ ও ৬ সেপ্টেম্বর। এ দুই দিনে রাজশাহী পয়েন্টে পানির উচ্চতা ছিল ১৭ দশমিক ১৮ সেন্টিমিটার। তারপর পানি কমতে থাকে। ১৮ সেপ্টেম্বর পানি কমে আসে ১৪ দশমিক ৮৭ মিটারে। এর পর থেকে আবার পানি বাড়তে থাকে।

সোমবার সকালে রাজশাহী পয়েন্টে পদ্মার পানি ১৬ দশমিক ৪০ সেন্টিমিটারে ওঠে। দুপুর তিনটাতেও পানির উচ্চতা একই ছিল। সন্ধ্যা ছয়টায় হয়েছিল ১৬ দশমিক ৪১ মিটার। আর মঙ্গলবার সকাল ছয়টায় হয়েছে ১৬ দশমিক ৪২ মিটার।

রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ডের গেজ রিডার এনামুল হক বলেন, সাধারণত অক্টোবর মাসের শেষ পর্যন্ত পদ্মায় পানি বাড়ার প্রবণতা থাকে। কিন্তু জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে কয়েক বছর ধরে নভেম্বরেও পানি বাড়ছে। উজানে বন্যা না হলে বাংলাদেশে বন্যার আশঙ্কা নেই। তবে চরাঞ্চল প্লাবিত হয়ে ফসলের ক্ষতি হতে পারে। ইতিমধ্যে জেলার বাঘা, চারঘাট, পবা ও গোদাগাড়ী এলাকার চর প্লাবিত হয়েছে।

জেলার বাঘা উপজেলার সুলতানপুর গ্রামের কৃষক মোস্তফা আলী জানান, ২০ বিঘা জমিতে রোপণ করা পেঁয়াজ তলিয়ে গেছে। একই জমিতে পেঁয়াজের সঙ্গে আখও রোপণ করা হয়েছিল।

উপজেলার কলিগ্রামের চাষি আসাফুদ্দৌলা বলেন, রোববার সারা দিন বাঘার চরে পানি বেড়েছে। আর এক দিন পানি বাড়লে তাঁর পাঁচ বিঘা জমির পেঁয়াজ ডুবে যাবে।

বাঘা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সফিউল্লাহ সুলতান বলেন, বাঘার চরের জমির পরিমাণ ৬ হাজার ৩০ হেক্টর। তার মধ্যে আবাদি জমির পরিমাণ ৫ হাজার ৫৬০ হেক্টর। চরের জমি খুবই উর্বর। সব জমিতেই চমৎকার সবজি হয়। পানি আরেকটু বাড়লে সর্বনাশ হয়ে যাবে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার.....

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর.....