শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:০৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বগুড়ায় এশিয়ান বার্তার প্রতিনিধি সম্মেলন বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ রাজশাহী জেলা শাখার ১৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী দূর্গাপূজা উপলক্ষে রাজশাহীতে এমপি বাদশার আর্থিক অনুদান সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ: মাসুদ হোসেন রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের ৫ টি ইউনিটে নতুন কমিটি ঘোষণা  তানোরে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থীর মতবিনিময় সভা শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে রাসিকের গঠিত কমিটির সভা অনুষ্ঠিত  এলআইইউপিসি প্রকল্পের সিটি লেভেল মাল্টিসেক্টরাল নিউট্রিশন কো-অর্ডিনেশন কমিটির সভা  রাসিক মেয়রের সাথে টেনিস বিজয়ী খেলোয়াড়দের সৌজন্য সাক্ষাৎ বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে বহুজাতিক কোম্পানিতে চাকুরীর দক্ষতা এবং ইতিবাচক মনোভাব বিষয়ক সেমিনার 

মাদকের ভয়াল থাবা রাবি ক্যাম্পাসেও

রিপোর্টারের নাম
  • সময় : শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৩০ দেখেছেন

প্রসঙ্গ ডেস্কঃ গত ২৯ আগস্ট, দুপুর ২টা। রাবি ক্যাম্পাসের শেখ রাসেল স্কুল মাঠে বসে মাদকসেবনের সময় চার বহিরাগত যুবককে আটক করেন প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা। তাদের কাছ থেকে মাদক ও সেবনের সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়। তিন মাসে ক্যাম্পাসে মাদকসেবন এবং বিভিন্ন ধরনের অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত ৮৪ জন প্রক্টরিয়াল বডির হাতে ধরা পড়ে। আটক ৮৪ জনের মধ্যে ৩২ জন মাদকসেবী। বাকি ৫২ জনের মধ্যে ১২ জনকে আটক করা হয়েছিল ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত ও যৌন হয়রানির অভিযোগে।

রাবি প্রক্টরিয়াল বডি সূত্রে জানা যায়, আটক ৮৪ জনের মধ্যে ৫৪ জনকে কাউন্সেলিং শেষে ভবিষ্যতে এমন কাজ না করার শর্তে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। এই ৫৪ জনের মধ্যে ২১ জন ছিল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। বাকি ৩৩ জন ছিল রুয়েট, প্রাইভেট বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ ছাড়াও নগরীর স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী। রাবি শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ক্যাম্পাসে মাদকসেবনসহ বিভিন্ন অসামাজিক কাজের বিষয়গুলো রাবি প্রশাসনের নজরে এলে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেন রাবি প্রশাসন। তারপরও ক্যাম্পাসে থেমে নেই মাদকসেবীদের আনাগোনা। উন্মুক্ত বিশাল ক্যাম্পাসের কোনো না কোনো দিক দিয়ে বহিরাগত মাদকসেবীরা ঢুকে পড়ছে ক্যাম্পাসে। শুধু সন্ধ্যা বা রাতেই নয়, দিনেও মাদকসেবীদের আনাগোনার কমতি নেই। সন্ধ্যার পর এক মোটরসাইকেলে তিন-চারজন করে ক্যাম্পাসে ঢুকে পড়ছে মাদকসেবীরা। ক্যাম্পাসের নির্জন এলাকায় বসে তারা উপদ্রবহীন পরিবেশে মাদকসেবন করছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষার্থী জানিয়েছেন ক্যাম্পাসে মাদক সরবরাহ ও বিক্রিতে জড়িত স্থানীয় যুবক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু কর্মচারী। আর পরোক্ষভাবে পুরো নেটওয়ার্ক নিয়ন্ত্রণ করেন ছাত্রলীগের কয়েকজন প্রভাবশালী নেতা। তারা নিজেরা যেমন বিনা পয়সায় মাদকসেবনের সুযোগ পাচ্ছেন, তেমনই বিক্রি থেকে মাসোহারাও পেয়ে আসছেন। খোঁজ নিয়ে আরও জানা যায়, রাবি ক্যাম্পাসে মাদকসেবীদের মধ্যে আলাদা আলাদা গ্রুপ রয়েছে। তারা কে কোথায় মাদকসেবন করবেন, সেই স্থানও আগে থেকে ঠিক করা থাকে। সন্ধ্যা অতিক্রান্ত হয়ে রাত নামতেই মাদকসেবনের জন্য সবাই হাজির হন তাদের নির্দিষ্ট জায়গায়। জায়গাগুলোর মধ্যে রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শাবাশ বাংলাদেশ মাঠ, কৃষি প্রকল্পের গোডাউনের বারান্দা, বিনোদপুর গেটসংলগ্ন আইবিএ ভবনের পথ, সৈয়দ আমীর হলের দক্ষিণ-পূর্ব কোণ, নবাব লতিফ হলের পূর্বপাশের খোলা মাঠ, এসএম হলের দক্ষিণ-পূর্ব কোণ, জোহা হলের পূর্বদিকে রাস্তার পাশে, সোহরাওয়ার্দী হল সংলগ্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেলস্টেশনের দুই পাশে, মাদার বখশ ও জিয়া হলের মধ্যবর্তী ফাঁকা জায়গায়, হবিবুর রহমান হলের সামনের মাঠে, চারুকলা ও কৃষি অনুষদসংলগ্ন মাঠগুলোর অন্তত তিনটি পয়েন্টে।

এছাড়া তৃতীয় বিজ্ঞান ভবনের পেছনে তুঁতবাগান, দ্বিতীয় বিজ্ঞান ভবনের পেছনের কালভার্ট, চতুর্থ বিজ্ঞান ভবনের পেছনে চায়ের দোকানে, প্রথম বিজ্ঞান ভবনের পশ্চিম পাশে, শহিদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার ছাত্র-শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের মাঠে পানির ফোয়ারার নিচে, সৈয়দ ইসমাঈল হোসেন সিরাজী ও রবীন্দ্র কলা ভবনের ছাদে, রোকেয়া হলের পশ্চিমদিকে, বিশ্ববিদ্যালয়ের মাজার গেটে রাস্তার পাশের মাঠ, জুবেরি ভবন মাঠের দক্ষিণ কোনাসহ ক্যাম্পাসে এমন প্রায় ৪০টি চিহ্নিত জায়গা রয়েছে, যেগুলোয় মাদকসেবীরা ভিড় করে।

এ বিষয়ে রাবি প্রক্টর প্রফেসর ড. আসাবুল হক বলেন, আমরা ক্যাম্পাসে মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছি। কিন্তু যদি কেউ ক্যাম্পাসের বাইরে মাদকসেবন করে, সেটা আমাদের জানা কষ্টকর। মাদক প্রতিরোধে সবার সহযোগিতা দরকার। যাদের পরিচিতরা মাদকসেবন করছেন, তারা যদি এসে আমাদের খবর দেন, তাহলে তাদের ফিরিয়ে আনতে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারি। এছাড়া ক্যাম্পাসে মাদক বিক্রি ও সেবনের বিরুদ্ধে প্রক্টরিয়াল বডি ও পুলিশ সব সময় সক্রিয় রয়েছে।

যুগান্তর 

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার.....

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরো খবর.....