মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৬:২১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শারদীয় দূর্গাপূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ছাত্রলীগের গণযোগাযোগ ও উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক তূর্য চারঘাটে নিজ গায়ে আগুন লাগিয়ে বৃদ্ধার আত্মহত্যা রাজশাহীতে চলন্ত বাসে ঢুকে গেল বিদ্যুতের খুঁটি নগরায়নের নয়া মহামারি ‘শব্দদূষণ’ রোধের দাবি তরুণদের আরইউজে সম্পাদকের ওপর হামলায় জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার জেলা শাখার নিন্দা বানেশ্বরে নাদের আলী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ও সভাপতির হাতাহাতি ওয়ালটনের কল সেন্টারে চাকরির সুযোগ রাজশাহীর শ্রেষ্ঠ ইউএনও দুর্গাপুরের সোহেল রানা পুঠিয়া রিপোর্টার্স ইউনিটির কমিটি গঠন: সভাপতি আরিফ, সম্পাদক রুবেল তানোরে রংতুলির কাজ শেষ, থানে তোলার অপেক্ষায় প্রতিমা 

তুলনামূলক বিশ্লেষণ করতেই অর্ধেক আসনে ইভিএমে ভোট

রিপোর্টারের নাম
  • সময় : বৃহস্পতিবার, ২৫ আগস্ট, ২০২২
  • ১৪ দেখেছেন

প্রসঙ্গ ডেস্কঃ ব্যালটের থেকে ইভিএম কতটা ভালো আর কতটা মন্দ সেটার একটা তুলনামূলক বিশ্লেষণ করতেই মোট সংসদীয় আসনের অর্ধেক আসনে ইভিএমে ভোটগ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এভাবে ভোট গ্রহণ করতে পারলে ইভিএম পদ্ধতির ভালো-মন্দও বোঝা যাবে। আজ বুধবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল এ কথা বলেন।

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেড় শত আসনে ইভিএম ব্যবহারের ব্যাখ্যায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘১৫০ টিতে ইভিএম, ১৫০টি ব্যালট দুটোর একটা তুলনামূলক বিশ্লেষণ করার সুযোগ হবে। আমরা ভবিষ্যতে আরও বেশি নিশ্চিত হতে পারবো যে ইভিএম দিয়ে কি মন্দ হচ্ছে নাকি উত্তম হচ্ছে। সেটা বিবেচনা করার সুযোগ হতে পারে।’

গত মঙ্গলবার ১৫০টি আসনে ইভিএমে ভোটগ্রহণ করা হবে এমন ঘোষণা দেওয়া হয় নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে। এই ঘোষণার পর থেকেই রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে পক্ষে-বিপক্ষে নানা আলোচনা ও সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে এমন সিদ্ধান্ত আরও বড় ধরনের সংকট সৃষ্টি হবে কিনা, তা নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি হাবিবুল আউয়াল। তিনি বলেন, ‘আমরা ইভিএম নিয়ে চট জলদি কোনো সিদ্ধান্ত নিইনি। আমরা প্রথম থেকেই বলেছিলাম পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে এবং টেকনিক্যাল ইভিএম নিয়ে যে ধোঁয়াশা সৃষ্টি করা হয়েছে, ওটা কতটা নির্ভরযোগ্য বা সত্য, ওটাও আমরা পরখ করে দেখার চেষ্টা করেছি। আমরা বিভিন্ন দলকে বলেছিলাম আপনাদের টেকনিক্যাল পারসনদেরকে নিয়ে আসেন। ওরাও এসেছিলেন। আমরা আজ পর্যন্ত ইভিএমে ওই ধরনের যে একটা বক্তব্য চাউর হয়েছে-এখানে ভোট দিলে ওখানে চলে যাবে, এর কোনো নির্ভরযোগ্যতা পাইনি এবং তারা দেখাতেও পারেননি।’

ফলাফল দেখে বোঝা যাবে ইভিএমে কারচুপি হয়েছে কি না এমন মন্তব্য করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘আপনারা দেখেছেন আমরা অনেকগুলো কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করেছি ও দলগুলোর মতামতের ভিত্তিতে ১৫০,১৫০; এই ভাবে ভাগ করে ইভিএমটাকে ব্যবহার করবো। এটা নিয়ে যে কথাগুলো চালু আছে, সেগুলো নির্বাচনের পরেও কিন্তু বোঝা যাবে। যদি দেখা যায় ফলাফলের ধরন এতেও বোঝা যাবে। আমরা পুরোপুরি আস্থাশীল হয়েই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ব্যালট পেপারে যে সমস্যা হয় তার জবাব ইভিএমে ভালোভাবে পাওয়া যাবে। কেননা, সহিংসতা, কারচুপি সম্ভব হয় না।’ কারও চাওয়া বা না চাওয়ার ওপর ভিত্তি করে নয়। ইসির সিদ্ধান্তেই সম্ভব হলে ১৫০টি আসনে ইভিএমে ভোটগ্রহণের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

বিএনপি যদি পরবর্তীতে কোনো দাবি নিয়ে আসে তখন কী করবেন-সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ‘উনারা আসলে হয়তো আলোচনা করে কমিশন সিদ্ধান্ত নেবে।’

সব দলের মতামত কমিশন বিবেচনায় নিয়েছে জানিয়ে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘ভোটকে হ্যান্ডেল করার দায়িত্ব ইসির। কীভাবে ভোট করলে স্বাচ্ছন্দ্য হতে পারে, সুষ্ঠু হতে পারে এবং ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবে, সেটা আমাদের মুখ্য বিবেচনার বিষয়। দলগুলোর কে কি বলেছে তা মুখ্য বিবেচনায় আসে নাই। তবে তাদের বক্তব্যগুলো বিবেচনায় নিয়েছি। একই সঙ্গে লক্ষ লক্ষ কোটি কোটি যে ভোটার আছেন, তারা যাতে আরও ভালোভাবে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে সেই বিষয়টাকে বিবেচনায় নিয়ে দীর্ঘ সময় ধরে বিষয়টা আলোচনা-পর্যালোচনা করে আমরা সিদ্ধান্তটা নিয়েছি। এখন ইভিএমের ক্ষেত্রে ওই ধরনের মাস্তানি কেউ করলে তা মোকাবিলা করতে হবে। আমরা তা করব।’

সূত্রঃ আজকের পত্রিকা

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার.....

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরো খবর.....