শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বগুড়ায় এশিয়ান বার্তার প্রতিনিধি সম্মেলন বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ রাজশাহী জেলা শাখার ১৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী দূর্গাপূজা উপলক্ষে রাজশাহীতে এমপি বাদশার আর্থিক অনুদান সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ: মাসুদ হোসেন রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের ৫ টি ইউনিটে নতুন কমিটি ঘোষণা  তানোরে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থীর মতবিনিময় সভা শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে রাসিকের গঠিত কমিটির সভা অনুষ্ঠিত  এলআইইউপিসি প্রকল্পের সিটি লেভেল মাল্টিসেক্টরাল নিউট্রিশন কো-অর্ডিনেশন কমিটির সভা  রাসিক মেয়রের সাথে টেনিস বিজয়ী খেলোয়াড়দের সৌজন্য সাক্ষাৎ বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে বহুজাতিক কোম্পানিতে চাকুরীর দক্ষতা এবং ইতিবাচক মনোভাব বিষয়ক সেমিনার 

সেনাবাহিনী নির্মিত সড়কে আমূল পরিবর্তন আসবে পার্বত্য তিন জেলায়

রিপোর্টারের নাম
  • সময় : সোমবার, ২২ আগস্ট, ২০২২
  • ২৭ দেখেছেন

প্রসঙ্গ ডেস্কঃ পার্বত্য তিন জেলায় সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে নির্মিত হচ্ছে আন্তঃসংযোগ সড়ক। প্রথম পর্যায়ে ৩১৭ কিলোমিটার সীমান্ত সড়কের কাজ এখন শেষ পর্যায়ে। এতে সীমান্তে নিরাপত্তা রক্ষার পাশাপাশি দুর্গম এলাকার বাসিন্দাদের জীবনমান উন্নত হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বান্দরবান জেলার থানচির রেমাক্রী, লিক্রি ও বাকলাই এলাকায় সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে নির্মিত হচ্ছে তিন পার্বত্য জেলার আন্তঃসংযোগ সড়ক। ৩১৭ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে প্রথম পর্যায়ে রুমা, থানচি ও আলীকদম উপজেলার দুর্গম সীমান্ত এলাকায় নির্মিত হচ্ছে ৯২ কিলোমিটার সীমান্ত সড়ক।

আন্তঃসংযোগ সড়কটির কাজ শেষ হলে জোরদার হবে সীমান্তের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এতে দুর্গম এলাকায় উৎপাদিত কৃষিপণ্য বাজারজাত করাও সহজ হবে। পাল্টে যাবে স্থানীয়দের জীবনমান। রোববার (২১ আগস্ট) সকালে সেনাপ্রধান এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ সরেজমিন সীমান্ত সড়ক পরিদর্শন করেন।
 
এ সময় সেনা কর্মকর্তাদের বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেন তিনি। এদিকে সেনাবাহিনী নির্মিত এ সংযোগ সড়ক নিয়ে স্থানীয়রা বলেন, সেনাবাহিনী সড়ক নির্মাণ করায় আমাদের সবচেয়ে বেশি সুবিধা হবে। আগে আমরা কৃষিপণ্য ঠিকমতো বাজারজাত করতে পারতাম না। এখন কোনো সমস্যা হবে না।
 
এরই মধ্যে মোট ১ হাজার ৩৬ কিলোমিটার সড়কটির ৫০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। ব্যাটালিয়ন ও প্রকল্প কর্মকর্তা মেজর মোস্তফা কামাল বলেন, প্রথম পর্যায়ে ৩১৭ কিলোমিটার সড়কের কাজ শিগগিরই শেষ করে যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে।  
 
২০১৮ সালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৩৪ ব্রিগেড ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশনের তত্ত্বাবধানে সীমান্ত সড়কটির নির্মাণকাজ শুরু করে ১৬, ২০ ও ২৬ ইসিবির ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশন ব্যাটালিয়ন।

সূত্রঃ সময় নিউজ

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার.....

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরো খবর.....