মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৮:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শারদীয় দূর্গাপূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ছাত্রলীগের গণযোগাযোগ ও উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক তূর্য চারঘাটে নিজ গায়ে আগুন লাগিয়ে বৃদ্ধার আত্মহত্যা রাজশাহীতে চলন্ত বাসে ঢুকে গেল বিদ্যুতের খুঁটি নগরায়নের নয়া মহামারি ‘শব্দদূষণ’ রোধের দাবি তরুণদের আরইউজে সম্পাদকের ওপর হামলায় জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার জেলা শাখার নিন্দা বানেশ্বরে নাদের আলী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ও সভাপতির হাতাহাতি ওয়ালটনের কল সেন্টারে চাকরির সুযোগ রাজশাহীর শ্রেষ্ঠ ইউএনও দুর্গাপুরের সোহেল রানা পুঠিয়া রিপোর্টার্স ইউনিটির কমিটি গঠন: সভাপতি আরিফ, সম্পাদক রুবেল তানোরে রংতুলির কাজ শেষ, থানে তোলার অপেক্ষায় প্রতিমা 

সরকারের কাউকে ভারতকে অনুরোধ করার দায়িত্ব দেওয়া হয়নি: ওবায়দুল কাদের

রিপোর্টারের নাম
  • সময় : শুক্রবার, ১৯ আগস্ট, ২০২২
  • ২৮ দেখেছেন

প্রসঙ্গ ডেস্কঃ ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য ভারতকে অনুরোধ করে না আওয়ামী লীগ বলে জানিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। একই সঙ্গে তিনি বলেছেন সরকারের কাউকে এ দায়িত্ব দেওয়া হয়নি।

আজ শুক্রবার রাজধানীর পলাশী মোড়ে জন্মাষ্টমীর শোভাযাত্রার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি। গত বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামে জন্মাষ্টমীর এক অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্র মন্ত্রী একে আবদুল মোমেন বলেন, ‘ভারতে গিয়ে আমি বলেছি, শেখ হাসিনাকে টিকিয়ে রাখতে হবে। শেখ হাসিনা আমাদের আদর্শ। তাঁকে টিকিয়ে রাখলে আমাদের দেশ সত্যিকার অর্থে সাম্প্রদায়িকতামুক্ত একটি দেশ হবে। তাই আমি ভারতকে শেখ হাসিনা সরকারকে টিকিয়ে রাখতে যা যা করা দরকার সেটি করতে বলেছি।’

অনুষ্ঠানে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ভারত আমাদের বন্ধু দেশ। তাদের সঙ্গে আমরা বৈরিতা চাই না। ভারতের সঙ্গে বৈরিতা করে ৭৫ এর পর আমাদের নিজেদের সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে। শেখ হাসিনা-মোদি ক্ষমতায় আসার পর সে সংশয়, অবিশ্বাসের দেয়াল ভেঙে দিয়েছে।’

কাদের বলেন, ‘শেখ হাসিনা সরকারের একজন মন্ত্রী হিসেবে আমি বলতে চাই, ভারত আমাদের দুঃসময়ের বন্ধু। একাত্তরের রক্তের বন্ধনে আমরা আবদ্ধ। কিন্তু তাই বলে আমরা ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য ভারতকে অনুরোধ করব—এ ধরনের কোনো অনুরোধ আওয়ামী লীগ করে না। আর শেখ হাসিনা সরকারেরও কাউকে দায়িত্ব দেওয়া হয়নি।’

আওয়ামী লীগের সমর্থন ও ক্ষমতার উৎস দেশের জনগণ দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বাইরের কেউ আমাদের ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে পারবে না। আমরা আওয়ামী লীগ জনগণের সমর্থনেই ক্ষমতা টিকে আছে, ভবিষ্যতেও টিকে থাকবো। তিনি এ কথা বলেছেন। এটা তাঁর ব্যক্তিগত অভিমত হতে পারে। আমাদের সরকারের কারও বক্তব্য নয়। বন্ধু, বন্ধু আছে। অহেতুক কথা বলে সম্পর্কটা নষ্ট করবেন না।’

বঙ্গবন্ধুর সরকার ছিল ধর্মীয় সংখ্যালঘু বান্ধব সরকার উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘শেখ হাসিনার সরকার ধর্মীয় সংখ্যালঘু বান্ধব সরকার। এই সরকার ক্ষমতায় আসার পর কয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া জন্মাষ্টমীর অনুষ্ঠান আপনারা শান্তিপূর্ণভাবে পালন করেছেন। কেউ আপনাদের বাধা দেয়নি।’

কাদের বলেন, ‘যারা হিন্দুদের বাড়ি এবং মন্দিরে হামলা করে, তারা কোনো দলের নয়। তারা দুর্বৃত্ত। এই দুর্বৃত্তরা আমাদের সকলের শত্রু। এই দুর্বৃত্তায়ন, এদের বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নিচ্ছে। গতকালও (বৃহস্পতিবার) আমাদের নেত্রী বলেছেন, আপনারা নিজেদের ধর্মীয় সংখ্যালঘু ভাববেন না। আপনারাও মুক্তিযুদ্ধ করেছেন। আপনারা এ দেশে সংগ্রাম করেছেন, আন্দোলন করেছেন। আপনারা ধর্মীয় সংখ্যালঘু নন। আপনাদের সমান অধিকার। আপনাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করার কেউ নেই।’

সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে চিনে রাখার অনুরোধ জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তাদের দোসরদের, তাদের পৃষ্ঠপোষককে। সাম্প্রদায়িক রাজনীতি। এ দেশে তাদের বিশ্বস্ত একমাত্র ঠিকানা বিএনপি। এরাই ঠিকানা সাম্প্রদায়িক রাজনীতির। এরাই তাদের আপনজন। এরই উসকানি দেয়। এরই মদ দেয়। কাজেই এদের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।’

ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি আপনাদের সামনে পরিষ্কার করে বলতে চাই—আমরা আপনাদের সঙ্গে ছিলাম, আছি ভবিষ্যতেও থাকব। এখানে কোনো দ্বিধা দ্বন্দ্বের অবকাশ নেই। প্রতিবেশী দেশ ভারতের সঙ্গে আমাদের চমৎকার সম্পর্ক বিরাজমান। শেখ হাসিনা বাংলাদেশের জনন্দিত প্রধানমন্ত্রী। ভারতের জনন্দিত প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বসে এদেশের বহু অমীমাংসিত সমস্যা, সীমান্ত চুক্তি করেছেন তিনি।’

ওবায়দুল বলেন, ‘বাংলাদেশ-ভারত দুনিয়ার ইতিহাসে বিরল ঘটনা শান্তিপূর্ণভাবে ছিটমহল বিনিময় করেছে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী সেপ্টেম্বরে ভারতে যাওয়া কথা রয়েছে। তখন হয়তো আরও কিছু বিষয়ে মত ঐক্য হবে।

সূত্রঃ আজকের পত্রিকা

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার.....

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরো খবর.....