মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৬:২৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শারদীয় দূর্গাপূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ছাত্রলীগের গণযোগাযোগ ও উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক তূর্য চারঘাটে নিজ গায়ে আগুন লাগিয়ে বৃদ্ধার আত্মহত্যা রাজশাহীতে চলন্ত বাসে ঢুকে গেল বিদ্যুতের খুঁটি নগরায়নের নয়া মহামারি ‘শব্দদূষণ’ রোধের দাবি তরুণদের আরইউজে সম্পাদকের ওপর হামলায় জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার জেলা শাখার নিন্দা বানেশ্বরে নাদের আলী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ও সভাপতির হাতাহাতি ওয়ালটনের কল সেন্টারে চাকরির সুযোগ রাজশাহীর শ্রেষ্ঠ ইউএনও দুর্গাপুরের সোহেল রানা পুঠিয়া রিপোর্টার্স ইউনিটির কমিটি গঠন: সভাপতি আরিফ, সম্পাদক রুবেল তানোরে রংতুলির কাজ শেষ, থানে তোলার অপেক্ষায় প্রতিমা 

গোদাগাড়ীতে প্রচন্ড গরম ও লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ জনজীবন

রিপোর্টারের নাম
  • সময় : শুক্রবার, ১৯ আগস্ট, ২০২২
  • ৪৩ দেখেছেন

গোদাগাড়ী প্রতিনিধিঃ রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলায় প্রচন্ড গরম আর ঘনঘন লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে জনজীবন। ২৪ ঘন্টায় প্রায় ৮ বিদ্যুৎ থাকছে না বলে অভিযোগ করেন এলাকাবাসী। বেশকিছুদিন ধরে উপজেলায় তীব্র লোডশেডিং চলছে। বিদ্যুতের অভাবে জনজীবন বিপর্যস্ত।

গত কয়েকদিন থেকে প্রচন্ড গরমও দেখা দিয়েছে। গরমের তীব্রতায় এলাকার মানুষ অসহায় হয়ে পড়েছে। তারা দোয়া ও নফল নামাজ আদায় করে মহান আল্লাহর দরবারে বৃষ্টির জন্য প্রার্থনা করছেন। বেশির ভাগ সময় রাতে বিদ্যুৎ থাকছে না। দিনমজুর ও খেটে খাওয়া মানুষগুলো রাতে শান্তিমতো ঘুমাতে পারছেন না এই লোডশেডিং ও গরমের জন্য। কোন কোন সময় এর চেয়ে কম সময়ের জন্য বিদ্যুৎ তারা পাচ্ছেন। বর্তমানে উপজেলায় বিদ্যুৎ কখন যায় কখন আসছে তার ঠিক নেই। এলাকায় প্রচলিত রয়েছে- গোদাগাড়ীতে বিদ্যুৎ যায় না, মাঝে মাঝে আসে।

এছাড়াও প্রচন্ড গরমের কারণে বিদ্যুতের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখতে হয় বলে অফিস সূত্রে জানা‌ গেছে। লোডশেডিংয়ের কারণে বৈদ্যুতিক পাখা বন্ধ থাকায় উপজেলাবাসী গরমে অতিষ্ঠ হয়ে রয়েছে। বর্তমানে যে লোডশেডিং চলছে উপজেলাবাসী তাকে ভায়াবহ লোডশেডিং বলে জানিয়েছেন।

এলাকায় বিদ্যুতের আসা যাওয়ার প্রতিযোগিতায় অতিষ্ঠ সাধারণ মানুষ। দিন-রাতে অতিরিক্ত গরম আর বিদ্যুতের লোডশেডিং এর কারণে অধিকাংশ পরিবারের শিশু থেকে বৃদ্ধরা অসুস্থ্য হয়ে পড়ছেন। এছাড়াও লোডশেডিং এর ফলে উপজেলার ক্ষুদ্র মাঝারি শিল্প কলকারখানার উৎপাদন কম হচ্ছে।

এতে করে তারা লোকসানের মুখে পড়বে বলে মালিকগণ অভিযোগ করেন। সরজমিনে ঘুরে ও খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এখন লোডশেডিংয়ের মাত্র আরোও ভয়াবহ পর্যায়ে চলে গেছে। প্রতিদিন গড়ে ৫ থেকে ১০ বার বিদ্যুৎ যাচ্ছে।

লোডশেডিংয়ের কারণে উপজেলাবাসী কোন মতে দিন পার করলেও রাত হলেই তাদের মাঝে নেমে আসে চরম দূভোর্গ। সন্ধ্যা থেকেই শুরু হয় বিদ্যুতের ভেলকিবাজি, তা চলে গভীর রাত পর্যন্ত। এতে রাতের ঘুম হারাম হয়ে পড়েছে তাদের।

এ বিষয়ে গোদাগাড়ী বিদ্যুৎ অফিসে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, আমাদের কিছু করার নাই। বিষয়টি আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে বলেন এ কর্মকর্তা।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার.....

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরো খবর.....