মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৩১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শারদীয় দূর্গাপূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ছাত্রলীগের গণযোগাযোগ ও উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক তূর্য চারঘাটে নিজ গায়ে আগুন লাগিয়ে বৃদ্ধার আত্মহত্যা রাজশাহীতে চলন্ত বাসে ঢুকে গেল বিদ্যুতের খুঁটি নগরায়নের নয়া মহামারি ‘শব্দদূষণ’ রোধের দাবি তরুণদের আরইউজে সম্পাদকের ওপর হামলায় জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার জেলা শাখার নিন্দা বানেশ্বরে নাদের আলী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ও সভাপতির হাতাহাতি ওয়ালটনের কল সেন্টারে চাকরির সুযোগ রাজশাহীর শ্রেষ্ঠ ইউএনও দুর্গাপুরের সোহেল রানা পুঠিয়া রিপোর্টার্স ইউনিটির কমিটি গঠন: সভাপতি আরিফ, সম্পাদক রুবেল তানোরে রংতুলির কাজ শেষ, থানে তোলার অপেক্ষায় প্রতিমা 

শ্রীলঙ্কার বন্দরে ভিড়ছে চীনের সেই সামরিক জাহাজ

রিপোর্টারের নাম
  • সময় : রবিবার, ১৪ আগস্ট, ২০২২
  • ২০ দেখেছেন

প্রসঙ্গ ডেস্কঃ ভারতের তীব্র চাপের মুখে চীনের একটি সামরিক জাহাজের পরিকল্পিত সফর অনির্দিষ্টকালের জন্য বিলম্বিত করতে বলেছিল শ্রীলঙ্কা। চীনা জাহাজের বিতর্কিত সফরটি আগের পরিকল্পনা অনুযায়ী এগোবে না বলে আশ্বস্ত করেছিলেন লঙ্কান প্রেসিডেন্ট রনিল বিক্রমাসিংহে নিজেই। তবে এ ঘোষণার পর সপ্তাহ পার না হতেই সুর বদলে ওই জাহাজটিকে শ্রীলঙ্কায় প্রবেশের অনুমতি দিয়েছে কলম্বো।

সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা জানায়, ভারতের উদ্বেগ সত্ত্বেও শনিবার (১৩ আগস্ট) চীনের জাহাজটিকে শ্রীলঙ্কায় প্রবেশের অনুমতি দেয় দেশটির সরকার।

এর আগে রিফিনিটিভ ইকনের শিপিং ডেটা থেকে দেখা যায়, চীনের গবেষণা এবং জরিপ জাহাজ ‘ইউয়ান ওয়াং ৫’ হাম্বানটোটার পথে রয়েছে। ১১ আগস্ট শ্রীলঙ্কায় পৌঁছার কথা ছিল জাহাজটির। পরে সেই সফর পিছিয়ে দেয়া হলেও নতুন করে প্রবেশের অনুমতি মেলায় জাহাজটি মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) শ্রীলঙ্কায় ভিড়বে বলে জানিয়েছে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

বিশ্লেষকরা বলছেন, এমন এক সময় চীনের সামরিক এ জাহাজটি শ্রীলঙ্কায় পাঠানো হচ্ছে, যখন সাত দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকটের মুখে রয়েছে দেশটি।

এদিকে ইউয়ান ওয়াং ৫-কে গবেষণা এবং জরিপ জাহাজ হিসেবে বর্ণনা করা হলেও ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, চীনের ওই জাহাজটি মূলত দ্বৈত-ব্যবহারের একটি গুপ্তচর জাহাজ। এটি মহাকাশ এবং স্যাটেলাইট ট্র্যাকিংয়ের জন্যও নিযুক্ত। এ ছাড়া আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণে নির্দিষ্ট ব্যবহার রয়েছে এই জাহাজের।
চীনের নির্মিত হাম্বানটোটা বন্দরটি সামরিক ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করতে পারে বেইজিং। আর ভারতের উদ্বেগ মূলত সেখানেই। দেড় বিলিয়ন ডলারে নির্মিত এ বন্দরটি এশিয়া থেকে ইউরোপের প্রধান শিপিং রুটের কাছাকাছি অবস্থিত।

গত ২৮ জুলাই ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র বলেছিলেন, চীনা জাহাজের এই সফর পর্যবেক্ষণ করছে দিল্লি। ভারত তার নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক স্বার্থরক্ষা করবে বলেও মন্তব্য করেন ওই কর্মকর্তা।

এর আগে চীনের জাহাজ পাঠানো নিয়ে শ্রীলঙ্কা সরকারের কাছে মৌখিক প্রতিবাদ জানায় ভারত। পরে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘বেইজিং আশা করে, সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলো সমুদ্রে বেইজিংয়ের বৈজ্ঞানিক গবেষণা কার্যক্রম স্বাভাবিকভাবে দেখবে এবং বৈধ সামুদ্রিক কার্যক্রমে হস্তক্ষেপ করা থেকে বিরত থাকবে।’

দুই বছর সীমান্তে সশস্ত্র সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০ জন ভারতীয় এবং চারজন চীনা সৈন্য নিহত হওয়ার পর থেকেই দিল্লি-বেইজিংয়ের মধ্যে উত্তেজনাপূর্ণ সম্পর্ক বিরাজ করছে। ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে ২০১৭ সালে গুরুত্বপূর্ণ হাম্বানটোটা বন্দরের বাণিজ্যিক কার্যক্রম ৯৯ বছরের লিজে একটি চীনা কোম্পানির কাছে হস্তান্তর করে শ্রীলঙ্কা সরকার। এর আগে ২০১৪ সালে চীনের একটি সাবমেরিন ও যুদ্ধজাহাজ কলম্বোয় ডক করার অনুমতি দেয় শ্রীলঙ্কা, যা ক্ষুব্ধ করেছিল ভারতকে।

সূত্রঃ সময় নিউজ

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার.....

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরো খবর.....